সরকারি পলিটেকনিক কলেজের তালিকা ২০২৪

সরকারি পলিটেকনিক কলেজের তালিকা ২০২৪ - আপনি কি সরকারি পলিটেকনিকের তালিকা খুঁজছেন? আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো মূলত পলিটেকনিক। পলিটেকনিক বা কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবহারিক ও কর্মমুখী শিক্ষার চর্চা করে।

বাংলাদেশের সকল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট বা পলিটেকনিক বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধিভুক্ত। বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি জেলায় অন্তত একটি পলিটেকনিক বা কলেজ রয়েছে। আজ আমরা জানবো বাংলাদেশে কোন পলিটেকনিক কোথায় আছে এবং কতটি আসন আছে।

সরকারি পলিটেকনিক কলেজের তালিকা ২০২৪

আশা করি আপনি আর্টিকেল পড়েছেন যাতে আপনি বাংলাদেশের সমস্ত পলিটেকনিকের জন্য আসন সংখ্যা পুরোপুরি বুঝতে পারেন। তাহলে আসুন আজকে সরকারি পলিটেকনিকের তালিকা দিয়ে শুরু করি।

যারা সরকারি পলিটেকনিক কলেজে ভর্তি হতে পারে

এসএসসি ও সমমানের যোগ্যতায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা সরকারি পলিটেকনিকে ভর্তি হতে পারবে। অনেকেই জানেন না বাংলাদেশে কত পলিটেকনিক আছে এবং ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে পারে না কারণ তারা তাদের আসন সংখ্যা জানে না।

বাংলাদেশের সকল পলিটেকনিকের কার্যক্রম বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। পলিটেকনিক, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সাথে ব্যবহারিক শিক্ষা একই সাথে ঘটে। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কিছু কোর্স অফার করে।

কিছু বিখ্যাত কোর্সের মধ্যে রয়েছে ডিপ্লোমা ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, ডিপ্লোমা ইন অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি, ডিপ্লোমা ইন মেরিন টেকনোলজি, ডিপ্লোমা ইন এগ্রিকালচার, ডিপ্লোমা ইন ফরেস্ট্রি, ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল টেকনোলজি। এছাড়াও, এসএসসি (ভোকেশনাল) এবং এইচএসসি (ভোকেশনাল) রয়েছে।

বর্তমানে বাংলাদেশে সরকারি পলিটেকনিক কলেজের তালিকা

বাংলাদেশে বর্তমানে ৪৯টি সরকারি পলিটেকনিক রয়েছে। আপনি যদি এই প্রতিষ্ঠানগুলি সম্পর্কে জানতে চান তবে নীচের সরকারি পলিটেকনিকের তালিকা অনুসরণ করুন।

ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ইঞ্জিনিয়ার কাজী জাকির হোসেন এবং এটি ঢাকার তেজগাঁও শিল্প এলাকায় অবস্থিত। বর্তমানে, প্রতিষ্ঠানটি ১১টি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে। কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল, রাসায়নিক শিল্প, অটোমোবাইল, রেফ্রিজারেশন এবং এয়ার কন্ডিশনার। কলেজ ঢাকা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে মোট আসন রয়েছে ১৩৫০টি।

চট্টগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি চট্টগ্রামের নাসিরাবাদে অবস্থিত। চট্টগ্রাম ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির বর্তমান অধ্যক্ষ জনাব স্বপন কুমার নাথ। প্রতিষ্ঠানটিতে ইলেকট্রিক্যাল, পাওয়ার, সিভিল, ইলেকট্রনিক, মেকানিক্যাল, কম্পিউটার, এনভায়রনমেন্টাল এবং অন্যান্য শাখা রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিতে 8টি অনুমোদিত প্রকল্প, মোট 7টি বিষয় এবং 650টি আসন রয়েছে।

রংপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি রংপুরের জুম্মপালায় অবস্থিত। এটি ১৮৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান অধ্যক্ষ ডঃ খালেদ হোসেন। বর্তমানে, কলেজটি সাতটি বিষয়ে পরিপক্ক ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে। কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং। বর্তমানে রংপুর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে মোট আসন রয়েছে ৬৫০টি।

বগুড়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি বগুড়া জেলার শেরপুর রোডে অবস্থিত। কলেজটি বর্তমানে একজন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে রয়েছে। তার নাম জানার আবেদীন, এমডি মো. বগুড়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বর্তমানে মোট নয়টি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে।

সিভিল টেকনোলজি, ইলেকট্রিক্যাল টেকনোলজি, মেকানিক্যাল টেকনোলজি, পাওয়ার টেকনোলজি, ইলেকট্রনিক টেকনোলজি, কম্পিউটার টেকনোলজি, রেফ্রিজারেশন অ্যান্ড এয়ার কন্ডিশনিং টেকনোলজি, মাইনিং অ্যান্ড টেলিমেট্রি টেকনোলজি, ট্যুরিজম এবং হোটেল ম্যানেজমেন্ট। বর্তমানে কলেজটিতে মোট 600টি আসন রয়েছে।

রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি রাজশাহী শহরের সপুরায় অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানের বর্তমান অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুর রশিদ মল্লিক। কলেজটি বর্তমানে মোট আটটি বিষয়ের ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে। কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক মেডিকেল টেকনোলজি, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং। রাজশাহী ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে বর্তমানে মোট আসন রয়েছে ৫৫০টি।

বরিশাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি বরিশালের আলকান্দায় অবস্থিত। এটি ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমিন বরিশাল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির প্রধান শিক্ষক। বরিশাল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে শিক্ষার্থী রয়েছে ৬ হাজারের বেশি। কলেজটি বর্তমানে মোট আটটি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে।

কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং, স্কুল অফ ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটাল ম্যানেজমেন্ট, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রনিক মেডিকেল।

পাবনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি পাবনা জেলার গাংকোলায় অবস্থিত। এটি ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। পাবনা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির বর্তমান অধ্যক্ষ মোঃ আতিকুর রহমান। পাবনা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বর্তমানে মোট নয়টি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স অফার করে।

বৈদ্যুতিক শক্তি প্রযুক্তি, কম্পিউটার প্রযুক্তি, ইলেকট্রনিক প্রযুক্তি, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং প্রযুক্তি, পরিবেশ প্রযুক্তি, মেকানিক্যাল প্রযুক্তি, ইলেকট্রিক্যাল প্রযুক্তি, নির্মাণ প্রযুক্তি, এয়ার কন্ডিশনার এবং রেফ্রিজারেশন প্রযুক্তি। পাবনা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে বর্তমানে মোট আসন রয়েছে ৮৫০টি।

সিলেট পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি সিলেট শহরের বড়াইকান্দি টেকনিক্যাল রোডে অবস্থিত। এর সংক্ষিপ্ত নাম (SPI)। ইকবাল চৌধুরী, অধ্যক্ষ, সিলেট ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি, প্রকৌশলী মো. সিলেট ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বর্তমানে সাতটি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে। কম্পিউটার, ইলেকট্রনিক্স, ইলেকট্রিক্যাল, মেশিনারি, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিসিটি, ইলেকট্রনিক মেডিকেল। সিলেট ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজিতে বর্তমানে মোট আসন রয়েছে ৬৫০টি।

কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি কোমিলা জেলা, কোটবাড়িতে অবস্থিত। মোঃ রকিব উল্লাহ, প্রিন্সিপাল, কুমিল্লা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি। এটি ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কুমিল্লা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বর্তমানে পাঁচটি বিষয়ে ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে। কম্পিউটার প্রযুক্তি, ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক প্রযুক্তি, মেকানিক্যাল প্রযুক্তি এবং নাগরিক প্রযুক্তি। কলেজটির মোট আসন ধারণক্ষমতা ৫০০ জন।

ফরিদপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট

এটি ফরিদপুর জেলার বায়তুল আমানে অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মোঃ আখতারুজ্জামান। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে ছয়টি বিষয়ে পাঠদান করা হয়। কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং, রেফ্রিজারেশন এবং এয়ার কন্ডিশনার, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে মোট ৬০০টি আসন রয়েছে।

বাংলাদেশের সরকারি পলিটেকনিকের তালিকা ছাড়াও, বেশ কিছু বিখ্যাত পলিটেকনিক রয়েছে, যেগুলো নিচে তালিকাভুক্ত করা হলোঃ

  • সুইডিশ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বাংলাদেশ
  • খুলনা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • ময়মনসিংহ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • দিনাজপুর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • ফিনি ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
  • যশোর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • কুষ্টিয়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
  • ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক
  • পাটুকালি ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
  • টাঙ্গাইল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • স্কুল অফ গ্রাফিক আর্টস
  • বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ গ্লাস অ্যান্ড সিরামিকস
  • বাংলাদেশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান
  • চট্টগ্রাম মহিলা পলিটেকনিক
  • ফ্যানি স্কুল অফ কম্পিউটার সায়েন্স
  • কুড়িগ্রাম ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • নওগাঁ পলিটেকনিক
  • ঠাকুরগাঁও ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • সাকিরা পলিটেকনিক
  • জেনেইডা ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
  • সিরাজগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • বিড়লা ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
  • বরগুনা পলিটেকনিক
  • নরসিংদী ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • মাগুরা ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • খুলনার মহিলা পলিটেকনিক মো
  • রাজশাহী মহিলা পলিটেকনিক
  • চাংপুর ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি
  • শরীয়তপুর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • হবিগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • শেরপুর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • কক্সবাজার ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • গোপালগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • লক্ষ্মীপুর ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • মুন্সীগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • চাঁপানবাবগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • কিশোরগঞ্জ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
  • মৌলভীবাজার ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি

এগুলো বাংলাদেশের সরকারি পলিটেকনিকের নাম।

আপনি কেন সরকারি পলিটেকনিক কলেজে ভর্তি হবেন?

ব্যবহারিক বা কর্ম-ভিত্তিক শিক্ষার উপর ক্রমবর্ধমান জোর দেওয়া হচ্ছে। কারণ চাকরিমুখী শিক্ষা এখন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার চেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য। বর্তমানে শুধু শিক্ষা দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন হয়ে পড়েছে, তাই কারিগরি শিক্ষা সবার জন্য অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

সর্বশেষঃ সরকারি পলিটেকনিক কলেজের তালিকা ২০২৪

বলা যায় কারিগরি শিক্ষা বর্তমান সময়ে অপূরণীয়। কারণ আজকের প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে প্রযুক্তিগত দক্ষতা ছাড়া টিকে থাকা অসম্ভব। আমি আশা করি এই নিবন্ধটি পড়ে আপনার বাংলাদেশের সরকারি পলিটেকনিক বা কলেজ সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞান রয়েছে। সবাইকে পুরো লেখাটি মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।


Next Post Previous Post