কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে - কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ

কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে এই বিষয় সর্ম্পকে অনেকেই জানতে চাই। আপনি যদি কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? তা জানার জন্য আমাদের এই আর্টিকেলে এসে থাকেন তাহলে সঠিক জায়গাতে এসেছেন। আজকে আমরা কুষ্ঠ রোগ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব তার সাথে আপনাদের জানাবো কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে কিনা?

আপনি যদি শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থাকেন তাহলে কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ এই সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? তা জেনে নেওয়া যাক।

কনটেন্ট সূচিপত্রঃ কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে - কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ

কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে - কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগঃ ভূমিকা

পৃথিবীর প্রাচীনতম রোগ গুলোর মধ্যে কুষ্ঠরোগ অন্যতম একটি। এ রোগে আক্রান্ত হলে মানুষের শারীরিক যন্ত্রণা সাথে মানসিক বিভিন্ন রকম যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়। কারন সমাজের মানুষ এই লোকটিকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারে না। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের কেউ পছন্দ করেনা। কিন্তু প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত হলে কুষ্ঠ রোগ নিরাময় যোগ্য। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? এছাড়া কুষ্ঠ রোগ হলে কি হয়? কুষ্ঠ রোগ কি বংশগত? এ সকল বিষয়ে আলোচনা করব।

কুষ্ঠ রোগ হলে কি হয়?

কুষ্ঠ রোগ জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই কুষ্ঠ রোগ হলে কি হয়? এ সম্পর্কে জানতে হবে আগে। কুষ্ঠ রোগ সাধারণত এক ধরনের ব্যাকটেরিয়ার কারণে হয়ে থাকে। এই ব্যাকটেরিয়াগুলো আমাদের পরিবেশ বিদ্যমান থাকে। জিনগত পরিবর্তন ও বৈচিত্র কুষ্ঠ রোগের ঝুঁকি আগের তুলনায় আরো বাড়িয়ে দেই। উক্ত ব্যাকটেরিয়াগুলো পরিবেশ থেকে নিঃশ্বাসের মাধ্যমে আমাদের শরীরে প্রবেশ করে।

আরো পড়ুনঃ শ্বেতী রোগ থেকে মুক্তির দোয়া-শ্বেতী রোগের হোমিও ঔষধ

কুষ্ঠ রোগ হলে কি হয়ঃ

১। কুষ্ঠ রোগ হলে হাত-পা কাজ করা বন্ধ করে দেয়।

২। হাতের আঙ্গুল ও পা ছোট হতে থাকে।

৩। পায়ে আলসার দেখা দেয় অথবা মারাত্মক ঘায়ের সৃষ্টি হয় যার কারণে হাত পা কাটা পড়তে পারে।

৪। চামড়ায় জ্বালাপোড়া করতে পারে প্রচুর।

৫। অনেক মানুষ পঙ্গু হয়ে যেতে পারে।

কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে

অনেকে প্রশ্ন করে থাকে কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? আজকের এই আর্টিকেলে আমরা তাদের এই প্রশ্নের উত্তর জানাবো। কুষ্ঠ রোগ কোন ছোঁয়াচে রোগ নয়। তবুও কুষ্ঠ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সীমাহীন যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়। অনেক রোগী আছে যারা লজ্জা ভয় এবং সামাজিক কথাবাত্রা কারণে তাদের এই ধরনের ব্যাধি লুকিয়ে রাখে।

বিশেষ করে কুষ্ঠ রোগীর নারী হয় তাহলে তাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা আরও বেশি বৃদ্ধি পায়। কারণ এসমস্ত নারীদের বিয়ের ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম সমস্যায় পড়তে হয়। আমরা অনেকেই জানিনা কুষ্ঠরোগ একটি চিকিৎসাযোগ্য রোগ। যদি প্রাথমিক অবস্থায় কুষ্ঠ রোগ নির্ণয় করা যায় তাহলে অল্প সময়ে চিকিৎসাতে এটি ভালো করা সম্ভব।

কিন্তু বাংলাদেশের মানুষেরা বেশিরভাগ সময়ে একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে চিকিৎসা নিতে আসেন যার ফলে তারা এর ওকে ভালো করতে পারেনা। তাই একটু সতর্কতার সাথে থেকে প্রাথমিক অবস্থায় এই রোগের লক্ষণ দেখা দিলেই চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে এবং চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। তাহলেই অল্প সময়ে আপনি এই রোগকে নিরাময় করতে পারবেন।

কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ?

কুষ্ঠ রোগ অতি প্রাচীনতম একটি রোগ। মানব ইতিহাসের সবচেয়ে পুরাতন রোগ গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো কুষ্ঠ রোগ। ধারণা করা হয় কুষ্ঠ রোগের ইতিহাস ৪ হাজার বছরের পুরাতন। প্রিয় বন্ধুরা আমরা ইতিমধ্যেই কুষ্ঠ রোগ হলে কি হয়? এ বিষয়ে সম্পর্কে জেনেছি। এখন জানবো কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ?

আরো পড়ুনঃ দাঁত শিরশির, দাঁত ব্যথা, দাঁত ভাঙ্গা, চিকিৎসা করণীয়

কুষ্ঠ রোগ সাধারণত ব্যাকটেরিয়ার জনিত কারণে হয়ে থাকে। যেই ব্যাকটেরিয়ার কারণে কুষ্ঠ রোগ হয়ে থাকে সেগুলো আমাদের পরিবেশে বিদ্যমান রয়েছে। কুষ্ঠ রোগ ব্যাকটেরিয়া কারণে হওয়া ও জিনগত পরিবর্তন বৈচিত্র কুষ্ঠ রোগের ঝুঁকি আরো বেশি বাড়িয়ে দেই। যে ব্যাকটেরিয়া কুষ্ঠ রোগের জন্য দায়ী তা আমাদের পরিবেশ বিদ্যমান থাকে এবং নিঃশ্বাসের মাধ্যমে আমাদের শরীরে প্রবেশ করে।

কুষ্ঠ রোগ কি বংশগত

কুষ্ঠ রোগ একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ এবং অল্প সংক্রামক রোগ যা দেহের ত্বক আক্রমণ করে থাকে। পরিবেশের বিদ্যমান এক ধরনের ব্যাকটেরিয়ার কারণে এ রোগ হয়ে থাকে। ব্যক্তির নাম হল মাইকোব্যাকটেরিয়াম লেপ্রী। অনেকেই প্রশ্ন করে কুষ্ঠ রোগ কি বংশগত? তাদের জানিয়ে রাখি কুষ্ঠ রোগ কোন বংশগত রোগ নয়।

কুষ্ঠ রোগ বংশগত রোগ নয়। সাধারণত এটি রোগজীবাণু সম্পন্ন একটি রোগ। যেহেতু ব্যাকটেরিয়ার কারণে এই রোগ হয়ে থাকে সেহেতু যে কোন রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এটিকে বংশগত রোগ বলা চলে না। আপনি যদি প্রাথমিক অবস্থায় কুষ্ঠ রোগ সনাক্ত করতে পারেন তাহলে অল্পদিনের চিকিৎসায় এটি সুস্থ করা সম্ভব।

কুষ্ঠ রোগ কি ভালো হয়?

পৃথিবীর প্রাচীনতম রোগ গুলোর মধ্যে কুষ্ঠরোগ অন্যতম একটি। অনেকেই কুষ্ঠ রোগ কি ভাল হয়? এ ধরনের প্রশ্ন করে থাকে। কারণ এটি একটি জটিল রোগ। সাধারণত তাই মানুষ মনে করে কুষ্ঠ রোগ ভাল হয় না। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে এই বিষয় সর্ম্পকে আলোচনা করেছি। এখন জানাবো কুষ্ঠ রোগ কি ভালো হয়?

দীর্ঘস্থায়ী চিকিৎসাঃ

আপনি যদি প্রাথমিক অবস্থায় কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসা নেন তাহলে অল্প সময়ের মধ্যে ভালো করা সম্ভব।ডেপসন নামের এন্টিবায়োটিক আবিষ্কারের মধ্য দিয়ে কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসার সাফল্য পাওয়া যায়। এ ওষুধটি সীমাবদ্ধতার মধ্যে ছিল এই ঔষধটি দীর্ঘদিন ধরে খাওয়া লাগত যে কারণে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া একজন রোগীর পক্ষে অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। দীর্ঘদিন ধরে এই চিকিৎসা ব্যবস্থা অবলম্বন করে কুষ্ঠ রোগের চিকিৎসা করা হতো।

আরো পড়ুনঃ অতিরিক্ত ঘুম হওয়ার কারণ সম্পর্কে জেনে নিন

স্বল্প চিকিৎসাঃ

কুষ্ঠ চিকিৎসার জন্য রিফামপিসিন ও ক্লোফাজিমিন নামের দুটি অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার করা হয়। কুষ্ঠ চিকিৎসায় এই দুইটি অ্যান্টিবায়োটিক যুক্ত করে দেখা গেল ওষুধ তিনটি সমন্বয় এর চিকিৎসা আরও বেশি কার্যকরী হয়ে দাঁড়িয়েছে। তখন থেকে কুষ্ঠ চিকিৎসা এই মাল্টি ড্রাগ থেরাপি চলে আসছে। চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করলে অল্প সময়ের মধ্যেই কুষ্ঠ রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়

কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে - কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগঃ উপসংহার

কুষ্ঠ রোগ কি ছোয়াছে? কুষ্ঠ রোগ কি ধরনের রোগ? কুষ্ঠ রোগ কি ভাল হয়? কুষ্ঠ রোগ কি বংশগত রোগ? উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলের বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। প্রিয় বন্ধুরা আশা করি আপনিও বিষয়গুলো সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পেয়েছেন। আপনাকে বিষয়গুলো জানাতে পেরে আমরা অনেক আনন্দিত। আপনার এবং আপনার পরিবারের সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ।২০৮৭৬

Next Post Previous Post