শবে বরাতের নামাজে নিয়ম ২০২৪

শবে বরাতের নামাজে নিয়ম ২০২৪ - আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক আজকের আর্টিকেলে শবে বরাতের নামাজের নিয়ম এবং শবে বরাতের নামাজের নিয়ত সম্পর্কে কিছু তথ্য নিয়ে হাজির হয়েছি। মুসলিম বিশ্বে শবে বরাতের রাত একটি গুরুত্বপূর্ণ রাত্রি। তাই আমাদের সকলের শবে বরাতের নামাজের নিয়ম এবং শবে বরাতের নামাজের নিয়ত সম্পর্কে জানা উচিত। আরো জানতে পারবেন ২০২৪ শবে বরাত কবে।

শবে বরাতের নামাজে নিয়ম ২০২৪

আপনি কি শবে বরাতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান। শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থেকে আমাদের এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে দেরি না করে  শবে বরাতের নামাজের নিয়ম এবং শবে বরাতের নামাজের নিয়ত, শবে বরাত ২০২৪ কত তারিখে সম্পর্কেজেনে নিন।

শবে বরাত অর্থ কি

শবে বরাত শব্দের অর্থঃ ফরাসি ভাষায় 'শব' শব্দের অর্থ রাত। আর 'বরাত' শব্দের অর্থ সৌভাগ্য। আরবি ভাষায়  শবে বরাতকে বলা হয় 'লাইলাতুল বরাত' অর্থাৎ সৌভাগ্যের রাত। এছাড়া হাদিসের ভাষা অনুযায়ী আল্লাহ 'তালা শবে বরাতের রাতে তার বান্দাদের গুনাহ, অপরাধ, মাফ বা ক্ষমা করে দেন।

শবে বরাত বলতে কি বুঝায়

শবে বরাত বা লাইলাতুল বরাত বলতে, হিজরী শাবান মাসের ১৪ ও ১৫ তারিখের মধ্যবর্তী রাতে পালিত মুসলিমদের গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত্রি। উপমহাদেশের এ রাতকে শবে বরাত বলা হয় ইসলামী বিশ্বাসের মতে, আল্লাহ তালা তার বান্দাদের বিশেষভাবে ক্ষমা প্রদান করেন।

শবে বরাতের ইতিহাস

পাঠক, এখন আপনাদের জন্য শবে বরাতের ইতিহাস আলোচনা করব। শবে বরাতের ইতিহাস হলঃ নিসফে শাবান বা লাইলাতুল বরাত হিজরী শাবান মাসের ১৪ ও ১৫ তারিখের মধ্যবর্তী রাতে পালিত মুসলিমদের গুরুত্বপূর্ণ রাত্রি। গোটা বিশ্বের মধ্যে উপমহাদেশে এই রাতকে শবে বরাত বলা হয়। ইসলামী বিশ্বাস মতে এই রাতে আল্লাহ তার বান্দাদেরকে বিশেষভাবে ক্ষমা প্রদান করেন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে অনেক মুসলমান নফল ইবাদতের মাধ্যমে শবে বরাত পালন করে।

শবে বরাত ২০২৪ কত তারিখ

আপনাদের মধ্যে যারা জানতে চেয়েছেন শবে বরাত ২০২৪ কত তারিখ তাদের সুবিধার্থে আজকের পোস্টে এই বছর শবে বরাত ২০২৪ মার্চ মাসের ৮ তারিখ রাতে হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে, সঠিক তারিখটি শাবান, ১৪৪৪ সালের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে।

শবে বরাতের আমল

শবে বরাতের সর্বশ্রেষ্ঠ আমল হলো দিনের বেলা রোজা রাখা এবং রাত্রি বেলায় নফল ইবাদত করা। শবে বরাতের রাতে আমল আমাদের তাকদিরের সবশ্রেষ্ঠ আমল এই রাত্রিতে আল্লাহ গত এক বছরের গুনাহ মাফ করে দেন এবং নতুন বছরের তাকদীর নির্ধারণ করে দেন।

শবে বরাতের নামাজের নিয়ম

আমাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা আল্লাহ তাআলার নফল ইবাদত গুলো করতে চাই। কিন্তু সঠিক নিয়মে ইবাদত করা থেকে বঞ্চিত হয়ে যায়। শবে বরাতের নামাজ হলো নফল ইবাদত। শবে বরাতের নামাজের নিয়ম আমাদের মাঝে অনেকেই সঠিক তথ্য জানেনা। তাই আমরা শবে বরাতের নামাজের নিয়ম নিয়ে আজকের আর্টিকেলে আপনাদের জন্য নিয়ে হাজির হয়েছি।

শবে বরাতের নামাজের পূর্বে এশার নামাজ পড়ে নিতে হবে। এশার নামাজ পড়ার সময় বেতের নামাজ হাতে রেখে দিতে হবে। তাই সকল নফল নামাজ শেষ করার পরে আপনি বেতের নামাজ পড়ে নিতে পারবেন।

শবে বরাতের নামাজের কোন নির্দিষ্ট রাকাত নেই। তাই আপনি শবে বরাতের নামাজ যে কোন রাকাত পড়তে পারবেন। আমাদের বিশ্ব নবী তিনি শবে বরাতের নামাজ কখনো ৬ রাকাত, আবার কখনো ১০ রাকাত, আবার কখনো কখনো ১২ রাকাত পড়তেন। তাই আমাদেরও উচিত তার নিয়ম অনুযায়ী নামাজ পড়া।

আপনি অবশ্যই ৬,১০, ১২ রাকাত নামাজ গুলোকে ২ বা ৪ পড়তে পারেন। আবার ৬ রাকাত নামাজ ২ ভাগে ভাগ করে পড়তে পারেন। ১০ রাকাত নামাজকে তিন ভাগে পড়তে পারেন। প্রথম চার ভাগে ৮ রাকাত দুই অংশ পরে দুই রাকাত। আপনি চাইলে ১২ রাকাত নামাজকে দুই ভাগে পড়তে পারেন।

শবে বরাতের নামাজ পড়ার সময় সুরা ফাতেহা তেলাওয়াত করার সময় অন্য একটি সূরা পড়তে হবে। এরপর প্রতি রাকাতে রুকু ও সেজদা করতে হবে। দুই রাকাতে দুরুদ শরীফ পড়তে হবে। এবং সালাম ফেরাতে হবে।

শবে বরাতের নামাজ মসজিদে কাতারে আদায় করার পরে যদি বাসায় গিয়ে পড়তে চান সেহেতু বেতের নামাজ হাতে রেখে বাসায় এসে শবে বরাতের নামাজ পড়তে পারেন। তবে শবে বরাতের নামাজের উদ্দেশ্য হবে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে।

শবে বরাতের রাতে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদতের রাত। এ রাতে আল্লাহ প্রতি বছরের গুনাহ মাফ করে থাকেন এবং পরবর্তী বছরের তাকদীর নির্ধারণ করে থাকেন। বন্ধুরা, আসুন আমরা বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ অনুসরণ করি। আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য আমরা সঠিকভাবে শবে বরাতের নিয়ম মেনে শবে বরাতের নামাজ আদায় করি। আল্লাহ তাআলা সকলকে শবে বরাতের নামাজ আদায় করার তৌফিক দান করুন।। আমীন

শবে বরাতের নামাজের নিয়ত

প্রিয় পাঠক, উপরে দিকে পোস্টে আমরা শবে বরাতের নামাজের নিয়ম ও ২০২৩ শবে বরাত সম্পর্কে বিস্তারিত জেনেছি। এখন আমরা জানবো শবে বরাতের নামাজের নিয়ত সম্পর্কে। শবে বরাতের দিবারাত্রি মুসলমানের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত। তাই আপনারা যারা শবেবরাতের নামাজের নিয়ত সম্পর্কে জানতে চান তারা আমাদের পোস্টের সঙ্গে থাকুন।

শবে বরাতের নামাজের নিয়ত আরবি ও বাংলায়

নাওয়াইতুআন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তাআ' লা রাকআতাই ছালাতি লাইলাতিল বারা তিন নাফলি মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

শবে বরাতের দুই রাকাআত নামাজ আদায়ের উদ্দেশ্যে কিবলামুখী হয়ে নিয়ত করলাম আল্লাহু আকবার।

মধ্য শাবানের নফল রোজাঃ হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেন, যখন শাবান মাসের দিবস মধ্যরাতে আসে তখন তোমরা দিনে রোজা রাখো এবং রাত্রে নফল ইবাদত করো।

শবে বরাতের নামাজের ফজিলত

শবে বরাতের নামাজের ফজিলত আমাদের সবারই জানা উচিত। কারণ গোটা মুসলিম বিশ্বের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ রাত হলো শবে বরাত। এই রাতে বান্দাদের ইবাদত কবুলের জন্য আল্লাহ তাআলা সাত আসমানে চলে আসেন। তাহলে জেনে নেয়া যাক, শবে বরাতের নামাজের নিয়ত, নিয়ম ও ফজিলত সম্পর্কে।

শবে বরাতের রাতের ফজিলত হাদিস শরীফে আছে, হযরত আয়েশা রাঃ থেকে বর্ণিত তিনি বলেনঃ একবার রাসূল সাঃ নামাজে দাঁড়ালেন এবং এত দীর্ঘ সিজদা করলেন যে আমার ধারণা হলো তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন। আমি তখন উঠে তার পায়ের বৃদ্ধা আঙ্গুল নাড়া দিলাম। অতঃপর তিনি সেজদা থেকে উঠে নামাজ শেষ করে আমাকে লক্ষ্য করে বললেনঃ হে আয়েশা তুমি কি আশঙ্কা হয়েছে। 

আমি বললাম ইহা রাসল সাঃ আপনার দীর্ঘ সিজদাত দেখে আমার আশঙ্কা হয়েছিল আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন কিনা। নবী সাঃ বললেনঃ তুমি কি জানো এটা কোন রাত। আমি বললাম আল্লাহ ও তাঁর রাসূল সাঃ ভালো জানেন। তখন রাসূল সাঃ বলেন এটা হল মধ্য শাবানের রাত। এ রাতে আল্লাহ তার বান্দাদের প্রতি মনোযোগ দেন। ক্ষমা প্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করে দেন অনুগ্রহ প্রার্থীদের অনুগ্রহ করেন আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের তাদের অবস্থানে ছেড়ে দেন।

হযরত আলী রাঃ থেকে বর্ণিত তিনি বলেন নবী করিম সাঃ বলেছেনঃ ১৪ই সাবান দিবাগত রাত যখন আসে তোমরা এই রাতটি ইবাদত বন্দেগীতে কাটাও এবং দিনের বেলা রোজা রাখো। কেননা এই দিনে আল্লাহু সূর্যাস্তের পর প্রথম আসমানে নেমে আসেন এবং আহবান করেন কোন ক্ষমা প্রার্থী আছ কি যাদের আমি ক্ষমা করব কোন রিজিক প্রার্থী আছ কি যাদের আমি রিজিক দিবো। আছো কি কোন বিপদগ্রস্ত যাদের আমি উদ্ধার করব। এভাবে ভোর পর্যন্ত আল্লাহ আহবান করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ

সর্বশেষ কথাঃ শবে বরাতের নামাজে নিয়ম ২০২৪ 

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, মহামান্বিত এই রাত্রি শবে বরাত নফল ইবাদতের সর্বশ্রেষ্ঠ একটি রাত্রি। আপনি এই রাত্রিতে নফল ইবাদত করার মাধ্যমে মহান আল্লাহতালার কাছ থেকে যত খুশি তত চাইতে পারেন। শবে বরাতের এই রাত্রি নফল ইবাদত করার মাধ্যমে আপনি আল্লাহর কাছে বেশি বেশি ক্ষমাও প্রার্থনা করবেন। 

শবে বরাতের এই রাত্রিতে আল্লাহ তা'আলা প্রথম আসমানে চলে আসেন এবং বলেন তোমরা কে আছ আমার কাছে যা ইচ্ছে চাও আমি তোমাদের ইচ্ছা পূরণ করব। তার জন্য আপনাকে শবে বরাতের নামাজের নিয়ত ও নিয়ম এবং শবে বরাত ২০২৩ কত তারিখে সম্পর্কে সঠিকভাবে বিস্তারিত জানতে হবে।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে শেষ পর্যন্ত পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম অনেক পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন।

Next Post Previous Post