ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায

ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায় - আপনি কি ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায় সম্পর্কে জানতে চান। আমাদের মধ্যে অনেক ব্লগার আছে যারা নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করে আর্টিকেল লিখছেন। অথবা নতুন কোন ওয়েবসাইট তৈরি করতে চাচ্ছেন। ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করার আগে ব্লগ ওয়েবসাইট করে কিভাবে অর্থোপার্জনের করা যায় এর সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক। তাদের জন্য আমাদের আজকের এই পর্বটি থাকছে  ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায়। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে জেনে নেয়া যাক, কিভাবে আপনি ব্লগ লিখে অর্থোপার্জন করবেন।

ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায়

আধুনিক যুগে ব্লগিং হলো একটি স্মার্ট প্রচেষ্টা। বিশেষ করে যখন ব্লগিং থেকে টাকা আসতে শুরু করে। আপনি যদি ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করার কৌশল সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমাদের আজকের এই পোস্ট  ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায় সম্পন্ন মনোযোগ সহকারে পড়ে। আপনি ব্লগ লিখে নানা উপায়ে আয় করতে পারবেন।

জনপ্রিয় ব্লক নগদীকরণ কৌশল

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

ব্লগ লিখে অর্থ উপার্জনের একটি অন্যতম উপায় হল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। যদি আপনি দীর্ঘদিন মাস্টার ব্লগিং করে থাকেন। তাহলে আপনি জানতে পারবেন যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং মূল ব্লগ মনিটাইজেশন কৌশল হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলতে, কোন কোম্পানির পণ্য বিক্রি করা। অর্থাৎ আপনি যদি অন্য কোম্পানির পণ্য আপনার অডিয়েন্স এর কাছে বিক্রি করে সেই বিকৃত পণ্যের ওপর যে কমিশন পাবেন সেটাই আপনার জন্য অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।

ওয়েবসাইট বাস সোশ্যাল নেটওয়ার্কের সাইটে কোন কোম্পানির পণ্য বিক্রি করে দিতে পারলে তারা আপনাকে নির্দিষ্ট একটি কমিশন দিয়ে থাকে। এ সময় আপিলেট মার্কেটিং একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় মাধ্যম খুব সহজেই আপনি আপনার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বছরে লাখ টাকার উপরে ইনকাম করে নিতে পারবেন।

আশা করি, এতক্ষণে আপনি  অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। এখন আমরা জানবো তথ্য ও পণ্য বিক্রি করে আয় সম্পর্কে।

তথ্য-পণ্য বিক্রি

আপনি যদি আপনার ব্যান্ডকে একটি প্রমাণিত শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চান তাহলে অনুমোদিত পণ্যগুলো যথেষ্ট হবে না। ব্লক লিখে অর্থ উপার্জনের ক্ষেত্রে পণ্য বিক্রি একটি সহজলভ্য মাধ্যম। বিবেচনা করার জন্য কিছু পণ্য ধারণা হলো ই-বুক অডিও বুক এবং অর্থ প্রদানের প্রোডাক্ট আপনার কাছে পর্যাপ্ত সংস্থান থাকলে আপনি একটি পণ্য অনলাইনে কোর্স বিকাশে করতে পারবেন।

সেবা প্রদান

যেহেতু আপনি একটি ওয়েবসাইটের মালিক। সেহেতু আপনি একটি ওয়েবসাইট চালান। তাই সম্ভব আপনার এমন দক্ষতা আছে যা অন্যান্য ব্যাংকে আপনার অনলাইনে লক্ষ্য পূরণে সাহায্য করতে পারে। যেমন আপনি যদি কোন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর দক্ষ হন ব্র্যান্ডগুলোকে তাদের স্পেশাল মিডিয়া প্রচার বা পরিচালনা করতে আপনার সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে। আপনি অফার করতে পারেন। এমন অন্যান্য পরিষেবার মধ্যে রয়েছে গ্রাফিক ডিজাইন ও ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট এবং কন্টাক্ট এডিটিং।

টাকার বিনিময়ে পরামর্শদাতা

অনলাইনে পরামর্শ হলো একটি নির্দিষ্ট ধরনের পরিষেবা যা আপনি আর এর জন্য আপনার ওয়েবসাইট অফার করতে পারেন। বর্তমানে একজন অনলাইন পরামর্শদাতা হিসেবে আপনার লক্ষ্য হলো আপনার ইচ্ছুক প্ল্যান্টের প্রতিষ্ঠানের জ্ঞানের অভাব পূরণ করা। এছাড়াও আপনি তাদের চাহিদা উদ্দেশ্য উপলব্ধি সংস্থার মূল্যায়ন করে একটি কর্মপরিকল্পনা প্রস্তুত ও সহায়তা করতে পারেন। প্রচুর সফল ব্লগার তাদের দক্ষতার ক্ষেত্রে পরামর্শ সেবা প্রদান করে থাকে।

ইউটিউব চ্যানেল খোলা

আপনি যদি আগে জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে আপনার ব্লকটিকে একটি স্প্রিংবোর্ড হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। আপনার যদি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন হয়ে থাকেন তাহলে ইউটিউব চ্যানেল ইউটিউব ভিডিও বিজ্ঞাপন এর স্পন্সরশিপ এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। অনেকে আছে যারা তাদের ভিডিওর বর্ণনা লিংক এর মাধ্যমে অ্যাফিলেট ধন্যবাদ তাদের নিজস্ব ব্যান্ডের পণ্য দ্রব্য বিক্রি করে। শুধু একটি কথা মনে রাখবেন youtube ভিডিওগুলো শুধুমাত্র প্রচারমূলক হওয়া উচিত নয় অন্ততপক্ষে আপনার একটি অর্থপূর্ণ রিভিউ দিতে হবে যাতে দশকের একটি সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে।

সরাসরি মনিটাইজিং কৌশল

স্পন্সর পোস্ট লেখা

যদি ইউটিউব চ্যানেলে গুলো স্পন্সর করা ভিডিওগুলিকে নগদিকরণ করতে পারে তাহলে উৎস ট্রাফিক ওয়েবসাইট গুলো স্পন্সর করা পোস্টগুলোর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারে। এটি নির্ভর করে সাধারণত আপনার অনলাইন রিসের উপরে বা ব্যান্ডগুলোকে সামান্য গ্রাহকের সাথে সংযোজন করতে সহায়তা করে। আপনাকে লিখতে হবে নির্দিষ্ট বিষয়বস্তু হিসেবে এটি আপনার এবং আপনার স্পন্সর মধ্যকার ব্যবস্থাপনার ওপর নির্ভর করে। এটি হতে পারে আপনার একটি রিভিউ কিংবা সংবাদ এবং এ জাতীয় কিছু।

বিজ্ঞাপন প্রকাশের মাধ্যম

একটি এডভাইটোরিয়াল হল বিশেষ ধরনের স্পন্সর করা। পোস্টে যার উদ্দেশ্যে অন্য কোম্পানির পণ্য প্রচার করা। সাধারণত একটি গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম হল আপনার বিজ্ঞাপনের 70 থেকে 80 পার্সেন্ট বিষয় সম্পর্কে এবং শুধুমাত্র ২০ থেকে ৩০% পণ্য সম্পর্কে বিজ্ঞাপন প্রচার করা। গুরুত্বপূর্ণ যে পোস্টটি একটি বিজ্ঞাপন এবং সমস্ত লিংক এর জন্য nofllow ও বৈশিষ্ট্যটি ব্যবহার করুন। কিছু কোম্পানি আপনাকে একটি প্রকাশে অন্তর্ভুক্ত না করতে বা dofllow লিংক করতে বলতে পারে। এক্ষেত্রে কি করতে হবে তা সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করে।

ফিজিকাল প্রোডাক্ট বিক্রি করুন

কিছু ব্লগার তাদের হস্তনির্মিত পণ্যের প্রচারের জন্য তাদের ওয়েবসাইট একটি ডিজিটাল প্লাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করে। আপনি যদি এই গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত হন তবে আপনার যা দরকার তা হলো একটি ভালো ডিজাইন করা বিক্রির পেজ এবং আপনি ঠিক পথে অগ্রসর হচ্ছেন।

আপনার স্থানীয় প্রতিষ্ঠান প্রমোট করুন

অনলাইনে স্থানীয় ব্যবসায়ী প্রচার করা যতটা সহজ মনে হয় ততটা সহজ নয়। আপনাকে আপনার কেয়ার গুলো সাবধানে যাচাই করতে হবে আপনার মূল্য প্রস্তাবগুলিকে শুক্ষভাবে উপস্থাপন করতে হবে এবং আপনার বিজ্ঞাপনগুলিকে হাইপার টার্গেট করতে হয়।

অফলাইন পরিষেবা গুলি প্রচার করুন

স্বাভাবিকভাবে আপনার ব্লগে আপনার যে কোন অফলাইন পরিষেবা প্রচার করা উচিত। নাকি একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার বা ইনটেরিয়র ডিজাইনার। একটি বিবাহ বা ইভেন্ট পরিকল্পনাকারী। তাহলে আপনার উচিত আপনার যথাযথভাবে প্রমোট করা।

গেটেড কনটেন্ট প্রকাশ করুন

ব্লক স্ফিয়ার এগুলোকে গ্রেটেড কনটেন্ট বলে। এগুলো সাধারণত ব্লকের অর্থ প্রদানকারী সদস্যের কাছে যোগ্য এক্সেসযোগ্য।

একটি জব বোর্ড তৈরি করুন

সংস্থানের ওয়েবসাইট গুলোতে আর অসাধারণ হতে পারে যদি তাতে ফ্রিল্যান্সিং রাইটিং জবস এর মতো জনপ্রিয় ব্লগে সেগুলো থাকতে পারে।

ডোনেশনের জন্য অনুরোধ করুন

শুধু মাত্র তখনই কাজ করবে যদি আপনার অনুগত পাঠক থাকে যারা আপনার সামগ্রী প্রবক করে এবং প্রশংসা করে তবুও এটি একটি নগদিকরণ কৌশল। যা আপনি কয়েক মিনিটের মধ্যে ওয়েট করতে পারেন।

নিজের মার্জেনটাইজ বিক্রি করুন

zazzle এবং cafepress এর মত প্লাটফর্ম আপনাকে আপনার নিজস্ব ব্যান্ডের পণ্য দ্রব্য ডিজাইন ও বিক্রি করতে সাহায্য করতে পারে। আপনি যে পণ্যগুলি ডিজাইন করতে পারেন তার মধ্যে রয়েছে টি-শার্ট, মগ, বালিশ, স্টিকার এবং টুপি।

ব্যান্ডেড ফোন ল্যাপটপ ট্যাবলেট কেস বিক্রি করুন

যুগের সকলেরই স্মার্ট ডিভাইস রয়েছে। যার অর্থ একটি যন্ত্রাংশ হতে পারে। casetifity এমন এক ওয়েবসাইট আপনি নিজের গেজেট কে ডিজাইন করে বিক্রি করতে পারেন। iphone, macbook, ipad বা স্যামসাং ডিভাইসের হতে পারে।

একটি পেইড বিজনেস ডিরেক্টরি ওয়েবসাইট তৈরি করুন

একটি ব্যবসায়িক ডিরেক্টরি অনলাইন ব্যবহারকারীদের জন্য পণ্য ও পরিষেবা প্রদানকারী খুঁজে পাওয়া সহজ করে তোলে। তার মানে ব্লক ওয়েবসাইটের মালিক হিসেবে আপনার একমাত্র ভূমিকা হল মধ্যস্থকারি হওয়া।

একটি ইভেন্ট ক্যালেন্ডার নগদীকরণ

একটি ইভেন ক্যালেন্ডার অর্থ প্রদানের ব্যবসা তালিকার সাথে অর্থ প্রজননের মত একই যুক্তি অনুসরণ করে। আপনার ব্লক যত বেশি ট্রাফিক যাবে যাদের ইভেন্টের বিজ্ঞাপন দিতে চান এমন সম্ভাব্যদের আকৃষ্ট করার তত সহজ হয়ে থাকে।

ভাড়ার জন্য সাইডবার লিঙ্ক অফার

আপনার সাইটের সর্বত্র প্রদর্শিত সাহেবের গুলি সর্বাধিক এক্সপোজার প্রদান করে। এভাবে আপনাকে লিংক গুলোর জন্য আরো বেশি চার্জ করতে সক্ষম করে। ভবিষ্যতে অন্যান্য লিংকের জন্য জায়গা তৈরি করতে এটি মাসিক বা বার্ষিক ভিত্তিতে করা উচিত।

পোষ্টের মধ্যে লিংক বিক্রি

আপনি আপনার পোস্ট গুলির মধ্যে লিংক বিক্রি করতে পারেন। তবে আপনাকে অবশ্যই অতিরিক্ত যত্ন সরকারের একটি পোস্ট লিখতে হবে। এখানে সুবিধা হল লিংকে বাধ্য করা এড়াতে তারা অন্তর্গত নয়। আপনি সন্নিবেশ করা প্রতিটি আউটবাউন্ড লিঙ্ক আপনার পাঠকদের জন্য প্রাসঙ্গিত এবং মূল্যবান হতে হবে।

আপনার ওয়েবসাইটে একটি কয় বা বিক্রয় বিবর্তন করুন

সামান্য জ্ঞান থাকলে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে কয় এবং বিক্রয় বিভাগ তৈরি করতে পারবেন। এটি আপনার মনিটাইজিং এর সহযোগিতা করবে।

ব্লগের মাধ্যমে ফিন্যান্স

আপনি যদি ব্লগিং করেছেন মনে কোন বিষয়ের ওপর নিশ্চয়ই আপনার কিছু জ্ঞান দক্ষতা রয়েছে। যেমনঃ ধরুন আপনি ভালো কেক বানাতে পারেন বা আগাতে পারেন বা ব্লগে আপনার দক্ষতা প্রচার করুন। ফ্রিল্যান্সিং কাজে জোগাড় করে দিন। ধরুন এরকম কোন দক্ষতা আপনার নেই। তাহলে শুধুমাত্র ব্লগিং সংক্রান্ত টিপস দিয়ে আয় করতে পারেন। দেখবেন অনেকেই টাকা দিয়ে আপনার পরামর্শ নিচ্ছে যা এতদিন আপনি বিনামূল্যে দিয়ে এসেছেন।

ব্লগে বিজ্ঞাপন প্রকাশ

এগুলো থেকে টাকা রোজগারের খবিশ চালু উপায় হলো কোন কোম্পানির সঙ্গে সরাসরি কথা বলে তাদের বিজ্ঞাপন ব্লগে দেওয়া। এর ফলে অ্যাড network এ বাদ দিয়েই বিজ্ঞাপন দিতে পারছেন আপনি। বাড়ছে আয় এছাড়াও আপনি ঠিক করছেন কোন বিজ্ঞাপন দেবেন ও তার জন্য কত টাকা ধার্য করবেন। ফলে নিয়ন্ত্রণ থাকছে আপনার হাতে। তবে কোন কোন ক্ষেত্রে এই পদ্ধতি খুবই ভালো কাজ করলে অনেক ক্ষেত্রে একেবারে কার্যকরী হয় না

ব্লগ লিখে অর্থ উপার্জনের পাশাপাশি দক্ষতা বৃদ্ধি

লেখার দক্ষতা বৃদ্ধি

ই ব্লগ লেখার ক্ষেত্রে। তবে একজন অনবাসী লেখক হিসেবে আপনি ব্লক পোষ্ট লিখতে পারেন যদি দক্ষতার সঙ্গে নিজের লেখা পোস্ট উন্নয়ন করতে পারেন আপনার লেখার দক্ষতা উন্নয়নের সর্বোত্তম উপায় হলো পড়া ও লেখা। আপনি যত বেশি অনুশীলন করবেন তত বেশি আপনার ভাষা জ্ঞান বাড়বে এবং আরো শক্তিশালী হয়ে আপনি শব্দের মাধ্যমে নিজের চিন্তা ভাবনা প্রকাশ করতে পারবেন।

সর্বশেষ কথাঃ ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায়

প্রিয় পাঠক, আপনারা যারা নতুন ব্লগ তৈরি করেছেন। এবংগুলোকে আর্টিকেল লেখালেখি করছেন। তারা জানতে চেয়েছেন ব্লগ লিখে তথ্য প্রদানের উপায় সম্পর্কে। তাদের জন্য আমাদের আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত সকল তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। আশা করি আজকের এই পোস্টটি পড়ে আপনারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। যদি আমাদের এই আজকের এই পোস্ট  ব্লগ লিখে অর্থোপার্জনের উপায় সম্পর্কে ভালো লেগে থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে শেষ পর্যন্ত পোস্ট পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন।

Next Post Previous Post