OrdinaryITPostAd

মহররম কত তারিখে ২০২৩

মহররম কত তারিখে ২০২৩ - প্রতিদিন, অনুগত মুসলমানরা গুগল ব্যবহার করে আরবি ভাষায় আশুরা উদযাপনের তারিখ দেখেন। প্রথম চান্দ্র মাস বা আরবি মাসকে বলা হয় মহররম। মাসের দশ তারিখে আশুরা পালিত হয়। এই আশুরাকে ঘিরে ইসলামের সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। তাই আমি আজকে আমার বার্তায় আপনাকে 2023 সালের আশুরার তারিখ জানিয়ে দেব। আশুরার তাৎপর্যও জানুন। আরও তথ্যের জন্য এবং মহররম রোজা কখন পালন করা হবে তা জানতে, আজকের পুরো পোস্টটি পড়ুন।

মহররম কত তারিখে ২০২৩

ইসলামে, আশুরা প্রতি বছর মহররমের দশম দিনে স্মরণ করা হয়। এই দিনে ফেরাউন ও তার সৈন্যরা হজরত মুসা (আ.)-কে মুক্তি দেয়। যাইহোক, এই দিনে মহান আল্লাহ ফেরাউন ও তার বাহিনীকে নদীতে ডুবিয়ে ধ্বংস করে দেন। এই বিজয় উদযাপনে হযরত মুসা আলাইহি ওয়াসাল্লাম আশুরার দিনে রোজা রাখতেন।

পেজের সূচিপত্রঃ মহররম কত তারিখে ২০২৩

আশুরা কি? | মহররম কত তারিখে ২০২৩

আরবি মাস মহররম ইসলামে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ও গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই মাসটি পবিত্র আশুরা উদযাপনের জন্য নিবেদিত। যেহেতু আল্লাহ হযরত মুসা আল-আহিস-সালামকে ফেরাউন ও তার সৈন্যদের কাছ থেকে মুহররমের দশ তারিখে মুক্তি দিয়েছিলেন, তাই আশুরার নামকরণ করা হয়েছে। অন্যদিকে ফেরাউন ও তার বাহিনী নিশ্চিহ্ন ও নিমজ্জিত হয়।

আশুরার দিনে হজরত মুসা আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিজয়ের সম্মানে রোজা ও নফল ভক্তি চর্চা করা হয়। ইহুদিদের বিপরীতে, যারা এই দিনে একদিনের রোজা পালন করে, নবী মুহাম্মদ (সা.) আশুরার দিনে দুদিনের রোজা নির্ধারণ করেছিলেন। কারণ একদিন রোজা রাখলে ইহুদিদের মতো আচরণ করা শুরু করবে।

আশুরার দিনের ফজিলত | মহররম কত তারিখে ২০২৩

এমন বেশ কিছু সূত্র রয়েছে যা আমাদের বলে যে মহরম মাস কতটা তাৎপর্যপূর্ণ। মহরমের দশম দিনে আশুরা পালন করা হয়। মহররম একটি মর্যাদাপূর্ণ, গুরুত্বপূর্ণ মাস। এর রহস্যময় এবং ঐতিহাসিক তাত্পর্য ছাড়াও, এই মাসটি সেই সময় জুড়ে যুদ্ধের উপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞার জন্য সুপরিচিত।

এ কারণে মহররম মাসকে বিস্ময়কর মাস বলা হয়। কোরআন অনুসারে, মহররম মাস আল্লাহর হুকুম ও গণনা অনুসারে বারোটির একটি। যে মুহূর্ত থেকে তিনি পৃথিবী ও আকাশ সৃষ্টি করতে শুরু করলেন। সম্মানিত মাস তার মধ্যে চারটি। বহুদিন ধরেই এই নিয়ম চালু আছে। তাই এই মাসগুলোর সুনাম ক্ষুণ্ন করে নিজেকে হেয় করা থেকে বিরত থাকুন। 36: সূরা তওবা

বছর আল্লাহ তায়ালা দ্বারা নির্ধারিত হয়। চার মাস তাদের মধ্যে ব্যতিক্রমী তাৎপর্য ও গুরুত্বের জন্য আলাদা। হযরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণিত একটি হাদিস অনুযায়ী, রাসূলুল্লাহ (সা.) বছরে ১২টি মাস বলে ঘোষণা করেছেন। বিশেষ করে এই চার মাস তাৎপর্যপূর্ণ। এর মধ্যে তিনটি মাস—জিলকদ, জিলহজ এবং মহররম—একের পর এক আসে এবং মুজার গোত্রের রজব চতুর্থ মাস। [মুসলিম: 1679; বুখারীঃ ৪৬৬২]

আশুরা মাস, যেটি মহররমের দশম দিনে শুরু হয়, মহররম উদযাপনের অন্যতম কারণ কারণ এটি দুঃখজনক কাহিনী এবং ঐতিহাসিক ঘটনা দ্বারা পরিপূর্ণ। আশুরার ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ঘটনা হল ফেরাউনের অত্যাচার থেকে হজরত মুসার মুক্তি। এই দিনে আল্লাহ ফেরাউন ও তার বিশাল বাহিনীকে লোহিত সাগরে চিরতরে নিমজ্জিত করে মিথ্যা দোয়া শিখিয়েছিলেন।

আশুরা কত তারিখ ২০২৩ | মহররম কত তারিখে ২০২৩

যারা এখনও জানেন না তাদের জন্য, এই বছর মহররম মাসে আশুরা কবে পালিত হবে। তাদের জন্য আশুরা সংক্রান্ত হাদিস এবং ১০ই মহররম কখন হয় সে সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট বিবরণ আজকের পোস্টে উল্লেখ করা হয়েছে। চলতি বছরের ২৯ জুলাই আশুরা পালিত হবে। তাই আপনার প্রিয়জনকে এটি সম্পর্কে বলুন।

মহররম কত তারিখে ২০২৩

অনেক ধর্মপ্রাণ মুসলমান বর্তমানে গুগলে মহররম মাসে আশুরার তারিখ খুঁজছেন। আশুরাকে ঘিরে এই মহররম মাসে যে অনেক ইবাদত করা হয় তার মধ্যে রোজা অন্যতম। মহররম মাসে আশুরাকে চিহ্নিত করা দুটি রোজা সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পালন করে। তবে সবার আগে মহররম কখন শুরু হয় এবং কোন দিন তা সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।

মহররম কত তারিখে | মহররম কত তারিখে ২০২৩

এই বছরের জন্য মহররম রোজার তারিখটি অবশ্যই সেই ব্যক্তিদের জানা উচিত যারা মহররম মাসে রোজা পালন করে। মহররমের ৯,১০ তারিখ প্রত্যেককে অবশ্যই পালন করতে হবে। যারা আশুরা পালনে মহররম মাসে একটি রোজা পালন করে। এই বছর মহরমের সময় রোজা রাখার তারিখ গুলি হল ১৪৪৫ হিজরী মহররম মাসের ৯, ১০, ১১ তারিখ এবং ইংরেজি ২০২৩ সালের জুলাই মাসের ২৮, ২৯, ৩০ এবং বাংলা ১৪৩০ বছরের  শ্রাবণ মাসের ১৪, ১৫, ১৬ ৷ রোজ শনি, রবি, সোমবার। আশুরা উপলক্ষে আপনার নামাজ পড়ার আগে আপনাকে অবশ্যই ইসলামিক হাদিসের আলোকে সমস্ত ধরণের উপাসনা সম্পর্কিত প্রামাণিক দলিলগুলি পরীক্ষা করতে হবে৷

আশুরা কবে ২০২৩ | মহররম কত তারিখে ২০২৩

একটি নতুন আরবি বছর এসেছে এবং চলে গেছে। ১৪৪৪ হিজরি বিদায় দিয়ে ১৪৪৫ হিজরি শুরু হয়। ফলে আমি আজকের এই পোস্টে নতুন আরবি বছরের আশুরার রোজার পাশাপাশি আশুরা উৎযাপনের দিন সম্পর্কে তথ্য অন্তর্ভুক্ত করেছি। এ বছর জুলাই মাসে আশুরা পালিত হবে। যেখানে আশুরা সরকারি ছুটির দিন হিসেবে স্বীকৃত। আশুরা এই বছর ২৯ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে, যা মহররমের ১০ তারিখে পড়ে।

এ বছর বাংলাদেশে একটি মঙ্গলবার আশুরা পড়েছে। বাংলাদেশ ও আশপাশের এলাকার মানুষ আগামীকাল থেকে শুরু হয়ে সোমবার পর্যন্ত আশুরার রোজা পালন করবে। তারা তাদের রোজা শুরু করতে আজ রাতে সেহেরী খাবেন।

আশুরার রোজা রাখার বিনিময়ে, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার আগের বছরের গুনাহ মাফ করার জন্য আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেছিলেন। মুসলিম (সহীহ) (1162)

আশুরার রোজা পালনের মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে গুনাহ থেকে মুক্ত হওয়ার তাওফীক দান করুন।

১০ মহররম ২০২৩ | মহররম কত তারিখে ২০২৩

১৪৪৫ হিজরী ক্যালেন্ডার অনুযায়ী মহররম মাসের ১০ তারিখ ইংরেজি কত তারিখ পড়ে তা অনেকেই জানতে চেয়েছেন। আপনাদের সবাইকে জানাতে চাই এই বছর ১০ মহররম পালিত হবে জুলাই মাসের ২৯ তারিখ। যেখানে সকল মুসলমান আশুরা উপলক্ষে রোজা রেখে থাকে ও রাত্রি জাগরণ করে নফল ইবাদতের মাধ্যমে। অন্যদিকে বাংলাদেশ সরকার থেকে মহররমের ছুটি ঘোষণা করা হয়ে থাকে।

মহররম ছুটি কত তারিখে ২০২৩ | মহররম কত তারিখে ২০২৩

ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে চাঁদ দেখা কমিটি মহররম মাসের আশুরার দিন তারিখ ঠিক করেছে। যার ফলে মহররম মাসের আশুরা উপলক্ষে ছুটি কত তারিখে নির্ধারিত হবে তা প্রকাশ করা হয়েছে। জুলাই মাসের ২৯ তারিখ মহররম মাসের আশুরা উপলক্ষে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। তাই সবাইকে শেয়ার করে জানিয়ে দিন আশুরা কোন দিন পালিত হবে।

মহররম কত তারিখে হবে | মহররম কত তারিখে ২০২৩

ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে চাঁদ দেখা কমিটি তৈরি করে মহররম মাসের চাঁদ দেখার জন্য সবাই বসে ছিল। পরে মহররম কবে থেকে শুরু হয় এবং মহররমের রোজার সময় উল্লেখ করে গণমাধ্যমগুলো। মহররম রোজার তারিখ ২৯,৩০ জুলাই। অন্যদিকে জিলহজ মাস শেষ হবে ১৯ জুলাই।

মহররমের রোজা কয়টি | মহররম কত তারিখে ২০২৩

সালামিকের হাদিস অনুসারে মহররম মাসে আশুরার সময় দুটি রোজা পালন করা হয়। তাই সবাই হিজরির মহররম মাসের ৮ ও ৯ তারিখ রোজা রাখবে। মহররম মাসের একটি বিশেষ রীতি হল আশুরার রোজা। যা মুহাররমের ৯ ও ১০ তারিখ অথবা ১০ ও ১১ তারিখ রাখা যায়। অনেক আলেম বলেন সর্বোত্তম হচ্ছে মুহাররমের ৯, ১০ ও ১১ তারিখ ৩ দিনই রোজা রাখা।

৩টি রোজা রাখতে চাইলে সেগুলো রাখতে হবে ২৮, ২৯ ও ৩০ জুলাই ২০২৩। আশুরার রোজা রাখলে পূর্ববর্তী ও পরবর্তী বছরের গুনাহ আল্লাহ তায়ালা মাফ করে দিবেন। আশুরা ও আইয়ামে বীজের রোজা ছাড়াও যত বেশি পারা যায় এ মাসে রোজা রাখার চেষ্টা করব। কারণ নবীজি (সা) রমাদানের পর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতেন মুহাররম মাসের রোজাকে।

মহররম মাসে রোজা রাখা গুরুত্ব | মহররম কত তারিখে ২০২৩

মহররমের তাৎপর্য মহানবী (সা.)-এর যুগের অনেক আগে থেকেই। হিজরি ক্যালেন্ডারের দশম দিনে মুসলমানদের রোজা রাখতে হতো। পরে অবশ্য শুধু রমজানের রোজা রাখা দরকার ছিল; 10 হিজরির আর প্রয়োজন ছিল না। আয়েশা (রাঃ) এর কর্তৃত্বে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কর্তৃক প্রণীত একটি বর্ণনা অনুসারে।

"যে ব্যক্তি (আশুরা) রোজা রাখতে চায় সে তা করতে পারে; যে তা থেকে বিরত থাকতে চায় সে তা করতে পারে।" (1692) (বুখারি)

তবে মনে রাখবেন যে নিম্নলিখিত হাদিসে বলা হয়েছে যে মহররম রোজা ঐচ্ছিক (নফিল) রোজাগুলির মধ্যে সর্বাধিক উপকারী।

রাসুল (সাঃ) এর মতে রমজানের পর সর্বোত্তম রোজা হল আল্লাহর মহররম। (1613 আনাসে)

হাদিসটি ইঙ্গিত করে না যে মুসলমানরা একটি পূর্ণ মাস রোজা রাখার মাধ্যমে সমস্ত সুবিধা অর্জন করতে পারে। পরিবর্তে, এই মাসে প্রতিটি রোজার নিজস্ব সুবিধা রয়েছে। অতএব, এই পবিত্র মাসে যতটা সম্ভব রোজা রাখার এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করা উচিত।

আশুরার দিন সম্পর্কে | মহররম কত তারিখে ২০২৩

  • মহরম মাসের ১০ তারিখ মহান আল্লাহতালা এই পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ মহান আল্লাহতালা হযরত আদম সাঃ ও হাওয়া আদম সাঃ পৃথিবীতে অবতরণ করেছেন। পৃথিবীতে হযরত আদম সাঃ ও মা হওয়া তাদের সাথে দেখা করে দেন এবং তাদের তওবা কবুল করেন।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ যখন হযরত ইব্রাহিম আদম সাঃ কে আগুনে নিক্ষেপ করেন। তখন মহান আল্লাহতালা স্বয়ং হযরত ইব্রাহিম আদম সাঃ কে রক্ষা করেন।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ হযরত নূহ আদম আসাঃ এর জাহাজ কারবালার পান্তর অর্থাৎজুদি শহরে থেমে যায়।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ কারবালার শহরের প্রান্তরে হাসান ও হোসাইন শহীদ হন।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ মহান আল্লাহর নির্দেশে ফেরাউন ও তার দলবল নীল নদে ডুবে মারা যায়।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ মহান আল্লাহতালা হযরত ইউসুফ আঃ কে মাছের পেট থেকে রক্ষা করেন।
  • মহরম মাসের ১০ তারিখ কেয়ামত সংঘটিত হতে পারে।

মহররম সম্পর্কে কুসংস্কার ও ভ্রান্ত ধারণা | মহররম কত তারিখে ২০২৩

যদিও অনেক মুসলমান ইসলামের উদ্ভাবন সম্পর্কে সচেতন, তবুও মহররম এবং আশুরা সম্পর্কে কিছু কুসংস্কার এবং ভুল ধারণা রয়েছে যা কিছু মুসলমানের মনে তাদের পথ খুঁজে পেতে সক্ষম হয়েছে। সবচেয়ে সাধারণ কিছু ভুল ধারণা এবং কুসংস্কার হল:

মহররম মাস সম্পর্কে:

দুর্ভাগ্যবশত, কারবালার ঘটনার কারণে অনেক মুসলমান এখনও বিশ্বাস করে যে মহরম একটি অশুভ বা অশুভ মাস। আমরা জানি এটি একটি দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ছিল তবে একটি কথা মনে রাখবেন যে সহীহ মুসলিম: 1163 (ক) এবং তিরমিজি: 438 অনুসারে এটি আল্লাহর মাস। আল্লাহর মাস কিভাবে বান্দার জন্য অশুভ ও অশুভ হতে পারে? অপরদিকে, হোসাইন (রা.)-এর অন্যতম শোষণ ছিল অসুরের সময় তাঁর শাহাদাত।

এছাড়াও, একই বাস্তবতার কারণে, অনেক মুসলমান এই মাসে বিবাহ (নিকাহ) করেন না, যা আবার সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং বিভ্রান্তিকর।

শেষ কথাঃ মহররম কত তারিখে ২০২৩

বন্ধুরা, আমরা আজকের পড়তে পড়তে শেষ পর্যন্ত চলে এসেছি। আশা করি আপনারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। আপনারা নিশ্চয়ই আশুরা কি?, আশুরার দিনের ফজিলত, আশুরা কত তারিখ ২০২৩, মহররম কত তারিখে ২০২৩, মহররম কত তারিখে, আশুরা কবে ২০২৩, ১০ মহররম ২০২৩, মহররম ছুটি কত তারিখে ২০২৩, মহররম কত তারিখে হবে, মহররমের রোজা কয়টি, মহররম মাসে রোজা রাখা গুরুত্ব, আশুরার দিন সম্পর্কে, মহররম সম্পর্কে কুসংস্কার ও ভ্রান্ত ধারণা সম্পর্কে বিস্তারিত সকল তথ্য জানতে পেরেছেন। মহরম মাস মুসলিমদের কাছে ইবাদত সম্পন্ন মাস। এ মাসে রয়েছে বিশেষ সওয়াব। এক মহরম মাসের রোজা।

মহান আল্লাহর কাছে দোয়া রইল। যেন আপনাদের সকলকে মহরম মাসের ইবাদত করার তৌফিক দান করুন আমীন। এতক্ষন আমাদের সঙ্গে থেকে শেষ পর্যন্ত পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

যদি আপনাদের মহরম মাস নিয়ে আরো প্রশ্ন থেকে থাকে। তাহলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্স কমেন্ট করে জানাবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন