ঈদে মিলাদুন্নবী আমল - ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩

ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩  - প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, আসসালামু আলাইকুম। আশা করছি আপনারা সকলেই ভাল আছেন। আজকের আর্টিকেলে শুরুতে আমি আপনাদের জানাই ভোরের আলো আইটিডির পক্ষ থেকে আপনাদের স্বাগতম। আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সম্পর্কে আলোচনা করব। আমাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সম্পর্কে জানতে চান। আজকের পোস্টটি পোস্টটি তাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কেননা আজকের পোস্টে আমি আপনাদের সাথে মুসলিমদের ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সকল তথ্য বিস্তারিত ভাবেআলোচনা করব।

ঈদে মিলাদুন্নবী আমল

আপনি কি ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমাদের আজকের আর্টিকেলে শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থাকুন।

ইসলাম মানে শান্তি। আর এই ইসলাম আমাদের মানবজীবনকে অনেক সুন্দর করে। ইসলামের দৃষ্টিতে ১২ই রবিউল আউয়াল আমাদের মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন। এই দিনে আমাদের শেষ নবী মুহাম্মদ (সা.) জন্মগ্রহণ করেছিলেন। সর্বশক্তিমান আল্লাহ এবং আল্লাহর সমস্ত ফেরেশতারা এই দিনে বেশি বেশি দোয়া করেন।

ঈদে মিলাদুন্নবী আমল

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা পোস্টে আমি আপনাদের সাথে  ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব। আমাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩  সম্পর্কে গুগলে লিখে সার্চ করে থাকন। এবং আমাদের ওয়েবসাইটটি দেখে আমাদের আজকে আর্টিকেলটি ওপেন করেছেন। আপনারা সঠিক জায়গায় এসেছেন। কেননা আজকের পোস্টে আপনি জানতে পারবেন ঈদে মিলাদুন্নবী আমল সম্পর্কে।

প্রতিটি ঈদ তার মর্যাদা অনুযায়ী করা হয়। কোরবানির ঈদ ও রোজা আমাদের মুসলিম জাতির যুগের সঙ্গে অত্যন্ত দৃঢ়ভাবে জড়িত। এ দুই ঈদে এমন অনেক আমল রয়েছে যেগুলো হলো নামাজ। অন্যদিকে আমাদের নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর আগমন উপলক্ষে আনন্দ করার বিষয়টি শুধু বান্দার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, বরং তা স্বয়ং আল্লাহ তায়ালার সাথে গভীরভাবে জড়িত। আল্লাহ তায়ালা নামাজ-রোজা বা হজ-জাকাত, তবে তিনি আমাদের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হজরত মুহাম্মদের জন্য দুরূদ পাঠ করেন।

পবিত্র কোরানে বলা হয়েছে যে, নিশ্চয়ই আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতারা আমাদের শ্রেষ্ঠ নবী মুহাম্মদ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর উপর রহমত বর্ষণ করবেন। ঈদে মিলাদুন্নবীর অন্যতম আমল হলো বেশি বেশি দোয়া করা এবং শুভেচ্ছা জানানো। তাই সহজেই বলা যায় যে, ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে আলোচনা করলে ঈদে মিলাদুন্নবীর আমল সম্পর্কে ভালো করেই জানা যাবে।

ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ 

শ্রদ্ধেয় দর্শক মন্ডলী, আমাদের আজকের আর্টিকেলে ঈদে মিলাদুন্নবী আমল ও ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ এই পর্বে আমরা এখন জানব  ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ সম্পর্কে। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ জেনে নিন।

ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ মোস্তফা (সা.)-এর জন্মদিন হিসেবে মুসলমানদের মধ্যে পালিত একটি উৎসব। বিশ্বের মুসলমানদের মধ্যে এই দিনটি অত্যন্ত আনন্দের সাথে পালিত হয়। তবে এই উৎসব নিয়ে ইসলামি পণ্ডিতদের মধ্যে অনেক বিতর্ক রয়েছে। হিজরি বছরের তৃতীয় মাস রবিউল আউয়ালের দ্বাদশ তারিখে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের মুসলমানরা এই দিনটিকে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) বলে। আর পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের কাছে এই দিনটি নবী দিবস হিসেবে পরিচিত।

'ঈদ' শব্দের আক্ষরিক অর্থ আনন্দ করা, ফিরে আসা, আনন্দ উদযাপন করা ইত্যাদি। আর 'মিলাদ' শব্দের অর্থ জন্ম তারিখ, জন্মদিন, জন্মকাল ইত্যাদি। তাই 'মিলাদুন্নবী' (সা.) নবীর আগমনকে বোঝায়। . . আর ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) বলতে মহানবী (সা.)-এর আগমন উদযাপনকে বোঝায়। তাই মহানবী (সা.) বিশৃঙ্খলা ও বর্বরতায় পরিপূর্ণ যুদ্ধরত আরবদের হৃদয়ে শান্তি এনেছিলেন এবং মানবজাতিকে সত্য, সভ্যতা ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করে সমগ্র বিশ্বকে শান্তিতে পূর্ণ করেছিলেন। মহানবী (সা.) এর পবিত্র আগমন উপলক্ষে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন।

ইতিহাস পর্যালোচনা করলে জানা যায় যে, রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর যুগে, খুলাফায়ে রাশেদীনের যুগে এমনকি তাবে-তাবেয়ী-তাবেয়ীদের সময়েও ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) নামে কোনো উৎসব ছিল না। জমহুর মুহাদ্দিসীনে কিরাম, ফকীহ ও ঐতিহাসিকগণ এ ব্যাপারে একমত পোষণ করেছেন। আব্বাসীয় খিলাফতের সময়, শিয়া সম্প্রদায়ের উদ্যোগে শিয়া সম্প্রদায়ের উদ্যোগে চতুর্থ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে দুটি প্রধান মুসলিম ঈদ উৎসবের বাইরে যেকোনো দিনে সামাজিকভাবে উদযাপন করা শুরু হয়। প্রথমত, 352 হিজরিতে (963 খ্রিস্টাব্দ), বাগদাদে আব্বাসীয় খিলাফতের প্রধান প্রশাসক এবং রাজ্যের প্রধান নিয়ন্ত্রক, বনি বুয়াহিরের শিয়া শাসক, মুইজলি দিনিল্লাহ, 10 মহররম আশুরাকে শোক দিবস হিসেবে পালন করার নির্দেশ দেন। জিলহজ মাসের ৮ তারিখ 'গাদিরে খুম' দিন। তাঁর নির্দেশে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় এই দুটি দিবস পালিত হয়। শিয়ারাও ঈদে মিলাদুন্নবী উদযাপনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে।

ঐতিহাসিকদের মতে, মিলাদুন্নবী 12ই রবিউল আউয়ালে মিশরের ফাতেমীয় শাসকদের দ্বারা উদযাপিত হয়েছিল এবং ঈদে মিলাদুন্নবীর প্রথাটি হিজরি চতুর্থ শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে শুরু হয়েছিল। রাসুল (সঃ), হযরত আলী (রাঃ), হযরত ফাতিমা (রাঃ), ইমাম হাসান (রাঃ) ও ইমাম হোসাইন (রাঃ) এর জন্মদিন পালনের প্রধান প্রবর্তক ছিলেন খলিফা মুজালি দীনিল্লাহ।

ইবনে জারির সূত্র অনুসারে, আব্বাসীয় খিলাফতের সময়, বাদশাহ হারুনুর রশিদের মা খায়জুরান বিবি 173 হিজরিতে মদীনা শরীফে মহানবী (সা.)-এর পবিত্র মাস পরিদর্শন করেন এবং সেখানে দোয়া ও মিনতি পাঠ করেন, ঠিক যেভাবে নবী (সা.) মক্কায় করেছিলেন। যে বাড়িতে তার জন্ম। , প্রথমে সেই বাড়িতে গিয়ে নামাজ পড়ার প্রথা চালু করেন। পরবর্তীতে ১২ রবিউল আউয়াল মহিলার নেতৃত্বে তীর্থযাত্রীরা ওই বাড়িতে প্রতি বছর মহানবী (সা.)-এর জন্মদিন উদযাপন শুরু করেন।

আফজাল ইবনে আমিরুল জাইশ (485-515 হি) মিশরের ক্ষমতা দখল করার পর এই জন্মবার্ষিকী মুসলমানদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং অন্য 5 জন নবী [আলী (রা.), ফাতিমা (রা.), হাসান (রা.), হোসেন (রা.) এবং জয়নুল (রা.)। ) আবেদীন (রহ.)] জন্মবার্ষিকীর প্রথা রহিত করেন। শিয়া খলিফা আমির বিল আহকামিল্লাহ ৫১৫ হিজরিতে এটি পুনরায় চালু করেন। পরবর্তীতে কুরআন ও সুন্নাহ অনুযায়ী গাজী সালাহউদ্দিন আইয়ুবী (৫৩২-৫৮৭ হিজরী) ঈদে মিলাদুন্নবীসহ সকল জন্মদিন পালন বন্ধ করে দেন।

পরবর্তীতে ঈদে মীলাদুনবীর সবচেয়ে বিখ্যাত প্রচারক ছিলেন ইরাকের ইরবিল প্রদেশের শাসক আবু সাইদ মুজাফফর আল-দীন কুকুবুরি। তিনিই প্রথম সুন্নিসহ বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে ঈদে মিলাদুন্নবীর প্রবর্তন করেন। সিরাতুন্নবী গবেষক ও ঐতিহাসিকগণ তাকে মিলাদুন্নবীর প্রকৃত উদ্ভাবক বলেছেন। কারণ তিনিই সর্বপ্রথম ব্যাপক হারে এই উৎসব উদযাপন শুরু করেন এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় করে তোলেন। জানা যায়, ৬০৪ হিজরি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে মিলাদ উদযাপন শুরু হয়। মিলাদ বিষয়ক প্রথম বইটি স্পেনের অধিবাসী আবুল খাত্তাব ওমর ইবনে হাসান ইবনে দেহিয়া আল কালবি লিখেছেন। যিনি তাঁর দীর্ঘ ৯০ বছরের জীবনে সমগ্র ইসলামী বিশ্ব ভ্রমণ করেছেন এবং ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে মানুষের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি করেছেন।

ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপনের সমর্থকরা তাদের মতামতের সমর্থনে সূরা আল-ইমরানের 81 নম্বর আয়াতটি উদ্ধৃত করেছেন। এ আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন- 'হে প্রিয় রাসূল! সেই দিনের ঘটনাটি স্মরণ করুন যখন আল্লাহ আম্বিয়ার নবীদের কাছে প্রতিশ্রুতি নিয়েছিলেন যে, আমি তোমাদেরকে যে কিতাব ও হিকমত দান করেছি তার সাক্ষী হয়ে যখন একজন রাসূল আসবেন, তখন তোমরা অবশ্যই তার প্রতি ঈমান আনবে এবং তাকে সাহায্য করবে।'

তারা সূরা ইউনুসের 57 এবং 58 নং আয়াতকেও প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করেছে। এ আয়াতে মহান আল্লাহ বলেন, 'হে মানবজাতি! আপনার কাছে এসেছে আপনার পালনকর্তার পক্ষ থেকে হেদায়েত ও অন্তরের পবিত্রতা, হেদায়েত ও রহমত ঈমানদারদের জন্য। বলুন, হে নবী, তারা আল্লাহর অনুগ্রহ ও করুণাতে আনন্দিত। এটা তাদের সমস্ত ধন-সম্পদ জমা করার চেয়ে উত্তম।'

মুসলমানেরা ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করার কারণ 

আপনি কি জানেন মুসলমানরা ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের কারণ এবং এই দিনের ফজিলত কী? ঈদে মীলাদ-উন-নবী মুসলমানদের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন এবং এই দিনটির অনেক ফজিলত রয়েছে কারণ এই দিনে আমাদের শেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হজরত মুহাম্মদের জন্ম হয়েছিল। মুসলমানরা যে কারণে ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করে তা হলো ১২ই রবিউল আউয়াল এই দিনে আমাদের নবী মুহাম্মদ জন্মগ্রহণ করেন।

আমাদের নবী মুহাম্মদ (সা.) ১২ই রবিউল আউয়াল এই দিনে রোজা রাখতেন। সর্বশক্তিমান আল্লাহ এবং তার সমস্ত ফেরেশতারা নবীর জন্য দরূদ পাঠান। 12ই রবিউল আউয়াল আমাদের সমস্ত মুসলিম জাতির জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন। ঈদে মিলাদুন্নবী সম্পর্কে আলোচনা করলে মুসলমানরা ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের কারণ সম্পর্কে খুব সহজেই জানা যায়।

সর্বশেষ কথাঃ ঈদে মিলাদুন্নবী আমল - ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩ 

শ্রদ্ধেয় দর্শক মন্ডলী, আপনারা যারা আমাদের আজকের আর্টিকেল এতক্ষণ মনোযোগ দিয়ে পড়ছিলেন। আশা করি তারা নিশ্চয়ই ঈদে মিলাদুন্নবী আমল, ঈদে মিলাদুন্নবীর ইতিহাস ২০২৩, মুসলমানেরা ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করার কারণ  এ বিষয়ে বিস্তারিতভাবে জানতে পেরেছেন।

আশা করি আজকের পোস্টটি পড়ে আপনারা অনেক উপকৃত হয়েছেন। পোস্টটি পড়ে যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধু বান্ধবের সাথে শেয়ার করবেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

Next Post Previous Post