OrdinaryITPostAd

দোয়া ইউনুস - দোয়া ইউনুস প্রতিদিন ১০০০ বার পাঠের ফজিলত

দোয়া ইউনুস ও দোয়া ইউনুস প্রতিদিন ১০০০ বার পাঠের ফজিলত - সকল মুসলমানের জন্য দোয়া ইউনুস পাঠ করা এবং সকলকে বিপদ থেকে রক্ষা করার জন্য দোয়া ইউনুস পাঠে ফজিলত করা অত্যন্ত জরুরী।

দোয়া ইউনুস

আমাদের প্রিয় নবী হজরত ইউনুস (আ.) দুঃ সময়ে এই দোয়া ইউনুস পাঠ করার জন্য আল্লাহর কাছে পরামর্শ করেছিলেন। আল্লাহ তায়ালা তার দোয়া কবুল করে তাকে বিপদ থেকে রক্ষা করতেন। 

দোয়া ইউনুস প্রতিদিন ১০০০ বার পাঠের ফজিলত

অন্য বর্ণনায় আছে, দিনে ১০০০ বার ইউনূসের দোয়া পড়লে মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। আল্লাহ তাকে অনেক ভালোবাসেন এবং তার দোয়া কবুল করেন। এটি দুঃখ, যন্ত্রণা, অশান্তি ও কষ্ট দূর করে। আর তার জন্য সব ধরনের কল্যাণের দরজা খুলে দেওয়া হয়। এবং তাকে শয়তানের ফিতনা থেকে রক্ষা করেন।

বিভিন্ন বর্ণনায় বলা হয়েছে যে, এই দোয়াটি যদি এক লাখ পঁচিশ হাজার বার পাঠ করা হয় (যা ইউনুসের উপসংহার নামে পরিচিত), তাহলে সব ধরনের অনিষ্ট থেকে রক্ষা পাওয়া যায়, বিপদ-আপদ থেকে দূরে রাখা যায় এবং তা থেকে রক্ষা করা যায়। রোগ এবং দুঃখ।

দোয়া ইউনুস কি ইস্তেগফার ? 

দোয়া ইউনুস মুসলমানদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যেকোনো সংকট ও অস্থির সময়ে এই দোয়া ইউনুস পাঠ করা সুন্নত। আল্লাহর নবী ইউনুস (আঃ) বিপদে পড়লে বারবার এই দোয়া ইউনুস পাঠ করতেন। অতঃপর আল্লাহ তার দোয়া কবুল করেন এবং তাকে সংকট থেকে মুক্তি দেন। এই দোয়ার সঠিক আমলে মানুষ দুনিয়ার সকল বিপদ থেকে উপকৃত হয়। হাদিসে দোয়া ইউনুসের ফজিলত ও উপকারিতা তুলে ধরা হয়েছে।

আল্লাহর নবী হযরত ইউনুস আলাইহিস সালাম দেশত্যাগের সময় নদীতে ঝাঁপ দিয়ে মাছের পেটে আটকা পড়েন। এ অবস্থায় বিপদে পড়লে তিনি সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে একটি দোয়া পাঠ করেন এবং সেই দোয়ার বরকতে আল্লাহ তাকে মহা বিপদ থেকে রক্ষা করেন, তাই দোয়াটি ইউনুস।

দোয়া ইউনুস এর ইতিহাস

ইউনুস (আঃ) অন্যান্য নবীদের মত একজন সম্মানিত নবী।আল্লাহ সর্বশক্তিমান তাকে অন্যান্য নবীদের মত দায়িত্ব দিয়ে দিয়ে পাঠিয়েছিলেন, যেটি তখন ইরাকের মসুলে ছিল। তিনি তাকে তার জাতির কাছে আল্লাহর দাওয়াত এবং এক আল্লাহর বাণী পৌঁছে দিতে বলেছিলেন।

ইউনুস (আঃ) তাঁর লোকদেরকে আল্লাহর কাছে ফিরে আসার আহ্বান জানান, কিন্তু তারা তাঁর ডাকে সাড়া দেয়নি।

হযরত ইউনুস (আঃ) আল্লাহর নির্দেশের অপেক্ষা না করেই ত্যাগ করেন। ছেড়ে যাওয়ার সময় তিনি সমুদ্রের ঝড়ের কবলে পড়েছিলেন। চালক মনে করেন জাহাজে কোনো অপরাধী আছে। তিনি লটারির ব্যবস্থা করেন।

ইউনূস (আঃ) এর নাম লটারিতে বারবার উঠে আসছে। অতঃপর ইউনুস (আঃ)-কে জাহাজ থেকে নিক্ষেপ করা হয় এবং জাহাজটি বিপর্যয় থেকে বেঁচে যায়। তখন হযরত ইউনুস (আঃ) তিমির পেটে প্রবেশ করলেন। বিশাল মাছ তাকে গিলে ফেলল।

কুরআনে বলা হয়েছে যে ইউনুস ছিলেন একজন নবী। মনে রাখবেন, যখন তিনি পালিয়ে যান এবং মালবাহী যান, তিনি লটারিতে যোগদান করেন এবং হেরে যান। মাছ গিলে ফেলার পর সে নিজেকে অভিশাপ দিতে থাকে। যদি সে আল্লাহর পবিত্রতা ও মহত্ত্ব ঘোষণা না করে, তবে সে কিয়ামত পর্যন্ত সেই গর্ভেই থাকবে। (সূরা: আল-সাফফাত, আয়াত: 145-148)

হযরত ইউনুস (আঃ) আল্লাহর হুকুম না মেনে মাতৃভূমি ত্যাগ করার জন্য অনুশোচনায় আল্লাহর কাছে কেঁদেছিলেন। মাছ ধরার সময় তিনি ইউনূসের দুআ পাঠ করতেন।

মহান আল্লাহ হযরত ইউনুস (আঃ)-কে বহুবার পরীক্ষা করেছেন। পরীক্ষা হিসেবে হজরত ইউনুস (আ.) চল্লিশ দিন তিমির পেটে অবস্থান করেন। তিনি তিমির পেট থেকে আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন।

40 দিন পর, আল্লাহ তার প্রার্থনার উত্তর দিলেন। আল্লাহুর নির্দেশে, তিমি তাকে সমুদ্রের ধারে নিয়ে আসে। এভাবে ইউনুস আলাইহিস সালাম বিপদ থেকে মুক্তি পান।

এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন: অতঃপর আমি তাকে (যোনাহ) ডেকে এনে দুশ্চিন্তা থেকে রক্ষা করলাম। আর এভাবেই আমরা মুমিনদের রক্ষা করি (সূরা: উম্বিয়া, আয়াত: 88)।

পবিত্র কুরআনে ইউনুস (আঃ) নামে একটি সূরা রয়েছে। পবিত্র কুরআনের ১০ নং সূরায় হযরত ইউনুস আলাইহিস সালামের নাম রয়েছে।

হজরত ইউনুস (আঃ) কে কোরআনে "কুতের মালিকের পাগলামি" বলা হয়েছে। পাগলামি শব্দের অর্থ মাছের সাথে যুক্ত এবং কুঁড়েঘরের মালিক শব্দের অর্থ মাছের সঙ্গী বা মাছের মালিক। হজরত ইউনুস (আ.) পেটের ওপর ভর করে দুআ পাঠ করতেন।

দোয়া ইউনুস পড়ার নিয়ম - দোয়া ইউনুস পড়ার ফজিলত

দোয়া ইউনুস পড়ার কথা উল্লেখ করা নেই, ৪১ বার এবং ১০০,০০০ বার দোয়া ইউনুস পড়া সাধারণ অনুশীলন করতে কোনও অসুবিধা নেই।

{وَذَا النُّونِ إِذْ ذَهَبَ مُغَاضِبًا فَظَنَّ أَنْ لَنْ نَقْدِرَ عَلَيْهِ فَنَادَى فِي الظُّلُمَاتِ أَنْ لَا إِلَهَ إِلَّا أَنْتَ سُبْحَانَكَ إِنِّي كُنْتُ مِنَ الظَّالِمِينَ (87) فَاسْتَجَبْنَا لَهُ وَنَجَّيْنَاهُ مِنَ الْغَمِّ وَكَذَلِكَ نُنْجِي الْمُؤْمِنِينَ (88)}

ওয়া যাননূনি ইযযাহাবা মুগা,দিবান ফাজান্না আল্লান নাকদিরা ‘আলাইহি ফানা,দাফিজজু লুমা,তি আল্লাইলা,হা ইল্লাআনতা ছুবহা,নাকা ইন্নী কুনতুমিনাজ্জালিমীন।

আর সেই জেলের কথা মনে পড়ে যে রাগ করে চলে গেল, তখন ভাবল তাকে ধরতে পারব না। অতঃপর তিনি অন্ধকারে ডেকে বললেনঃ তুমি ছাড়া কোন উপাস্য নেই। তুমি নির্দোষ, আমি অপরাধী।

দোয়া ইউনুস খতমের দলিল

দোয়া ইউনুস তাওহীদ, তাসবীহ, তাওবা, রুজু ইল্লাল্লাহ, ইনাবত সবই একত্রে ঘোষণা করা হয়। এটি একটি অত্যন্ত ফলপ্রসূ দুয়া যা আমাদের আল্লাহর কাছে উপস্থাপন করার জন্য, আমাদের সমস্যাগুলিকে আল্লাহর কাছে উপস্থাপন করার জন্য, আল্লাহর সাথে সম্পর্ককে শক্তিশালী করার জন্য।

কুরআন-হাদিসে বর্ণিত আছে কিন্তু সংখ্যা ও পদ্ধতি মাসুর নয়, বরং এক্ষেত্রে অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বিভিন্ন অনুমোদনযোগ্য পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে। সে সংখ্যা বা পদ্ধতি সুন্নাতও নয়, মুস্তাহাবও নয়, শুধুমাত্র মুবাহ। আমাদের উদ্দেশ্য হল আল্লাহর দিকে ফিরে যাওয়া এবং তাঁর কাছে আমাদের সমস্যা এবং প্রয়োজনগুলি উপস্থাপন করা।

যদি আপনি এই মূলনীতিটি বুঝতে পারেন, তাহলে ৪১ বার এবং ১০০, ০০০ বার দোয়া ইউনুস পড়ার সাধারণ অনুশীলন করতে কোন অসুবিধা নেই।

দোয়া ইউনুস বাংলা উচ্চারণ - দোয়া ইউনুস বাংলা অর্থসহ

 আরবি উচ্চারণঃ লা ইলাহা ইল্লা আংতা, সুবহানাকা ইন্নি কুংতু মিনাজ জ্বালিমিন।'

বাংলা অর্থঃ "তুমি ব্যতীত সত্য কোনো উপাস্য নেই; তুমি পুতঃপবিত্র, নিশ্চয় আমি জালিমদের দলভুক্ত।"

সর্বশেষ কথাঃ 

সম্মানিত পাঠক আমরা আমাদের এই পোস্টের মাধ্যমে দোয়া ইউনুস প্রতিদিন ১০০০ বার পাঠের ফজিলত সম্পর্কে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করেছি। আমরা আশা করছি এই পোস্টটি আপনার কাছে ভালো লেগেছে এবং এই পোস্টটি পড়ার মাধ্যমে আপনি উপকৃত হয়েছেন।

আপনি যদি পরবর্তীতেও এই রকম নতুন নতুন পোস্ট পড়তে চান এবং নতুন কিছু জানতে চান তাহলে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। পরিশেষে আপনার এবং আপনার পরিবারের সদস্যদের সুস্থতা কামনা করে আমাদের আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করছি। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন