OrdinaryITPostAd

১৪ই ফেব্রুয়ারি কি দিবস - ১৪ ফেব্রুয়ারির ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস

প্রিয় আর্টিকেল পাঠক, আপনি নিশ্চয়ই গুগলে সার্চ করে জানতে চেয়েছেন। ১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবস-১৪ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস সম্পর্কে। আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আপনি যদি ১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবস-১৪ই ফেব্রুয়ারি ইতিহাস সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। কারণ আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করব বিশ্ব ভালোবাসা দিবস কবে শুরু হয়েছিল। চলুন জেনে নেয়া যাক, ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস সম্পর্কে।

অন্যান্য দেশের মতো প্রতিবছর বিশ্ব ভালোবাসা দিবস আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে আমাদের দেশেও পালন করে আসছে। কিন্তু অধিকাংশ মানুষই জানে না ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে। তাহলে চলুন ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে জেনে নিন।

১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবস

পাঠক, আপনি জানতে চেয়েছেন ১৪ ফেব্রুয়ারি কি দিবসঃ ১৪ই ফেব্রুয়ারি হল বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। এতে সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের জনপ্রিয়তা বেড়ে যায়। আর তাই তার প্রতি ঈর্ষান্বিত বা রাগান্বিত হয়ে রাজা তাকে মৃত্যুদন্ড দেন। সেই দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল। অতঃপর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউও প্রথম জুলিয়াস ভ্যালেন্টাইন স্মরণে ১৪ই ফেব্রুয়ারিকে ভ্যালেন্টাইন দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন।

ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয়

আপনি কি জানেন ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয়। আপনি যদি ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা এই সম্পর্কে না জেনে থাকেন। তাহলে আমাদের এই পোস্টটি সম্পন্ন মনোযোগ সহকারে পড়ে জেনে নিন ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা। তখনকার সময়ে রোমানদের সম্রাট ছিলেন দ্বিতীয় ক্লাডিয়াস। জয়ী রোমানরা অনেক সাহসী ছিলেন এবং একের পর এক বিভিন্ন রাষ্ট্র জয় করে আসছিলেন। সম্রাট গ্লাডিয়াস ভাবতো যুদ্ধের জন্য প্রয়োজন শক্তিশালী সেনাবাহিনী কিন্তু সমস্যা দ্বারাই তরুণীদের নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায় রোমানদের সম্রাট গ্লাডিয়াস। কিন্তু কেউ তার পছন্দের পুরুষটিকে যুদ্ধে পাঠাতে চায় না। তখন সম্রাট গ্লাডিয়াস বিয়ে নিষিদ্ধ করেন। সম্রাট গ্লাডিয়াস মনে করেন যদি পুরুষরা বিয়ে না করে তাহলে যুদ্ধে যেতে রাজি হবে। 

তখন সম্রাট গ্লাডিয়াস বিরুদ্ধে গিয়ে তরুণ-তরনের বিয়ে সম্পন্ন করাতে থাকে ভ্যালেন্টাইন। পরবর্তীতে সম্রাট গ্লাডিয়াস কানে একথা পৌঁছায়। তখনকার রাজা সম্রাট গ্লাডিয়াস ভ্যালেন্টাইনকে জেলে পাঠান। কিন্তু তখন আর একটি নতুন সমস্যা সৃষ্টি হয়। জেলে তার সাথে অনেকেই দেখা করতে আসে এর মধ্যে ছিল একটি মেয়ে যার সাথে ভ্যালেন্টাইন এর প্রেমের সম্পর্ক হয়ে যায়। সেই মেয়েটি ছিল অন্ধ। ভ্যালেন্টাইন তার অন্ধত্ব দূর করেন। এবং তাকে বিয়ে করেন পরবর্তীতে এই কথা সম্রাট গ্লাডিয়াস জানতে পারায় ভ্যালেন্টাইন এর ফাঁসি কার্যকর করেন। সেই দিন ভ্যালেন্টাইন সেই মেয়েটিকে একটি চিঠি লেখেন। সেই চিঠিতে লেখা ছিল ''love from your valentine''। সেই দিন ছিল ১৪ই ফেব্রুয়ারি । ৪৯৬ খ্রিস্টাব্দে পোপ প্রথম এই দিনটিকে 'ভ্যালেন্টাইন ডে' হিসেবে ঘোষণা করেন। এরপর থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি দিনটিতে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে।

১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস

আপনি কি ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের সম্পর্কে জানেন। যদি না জেনে থাকেন তাহলে আজকের পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আজকের পোস্টে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস ইতিহাস সম্পর্কে আলোচনা করব। ১৪ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ইতিহাস বলতে, সেন্ট বা সন্ত ভ্যালেন্টাইন নামের এক রোমান ক্যাথলিক ধর্ম যাজক ছিলেন। তিনি ধর্মযাজক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছিলেন একজন চিকিৎসক। সে সময় রোমানদের সম্রাট ছিলেন দ্বিতীয় ক্লাডিয়াস। জয়ী রোমানরা একের পর এক বিভিন্ন রাষ্ট্র জয় করে আসছে। আর যুদ্ধের জন্য প্রয়োজন শক্তিশালী সেনাবাহিনী কিন্তু সমস্যা দ্বারাই তরুণীদের নিয়ে চিন্তায় পড়ে যায় রোমানদের সম্রাট। কিন্তু কেউ তার পছন্দের পুরুষটিকে যুদ্ধে বাড়াতে চায় না। তখন সম্রাট গ্লাডিয়াস বিয়ে নিষিদ্ধ করেন। সম্রাট গ্লাডিয়াস মনে করেন যদি পুরুষরা বিয়ে না করে তাহলে যুদ্ধে যেতে রাজি হবে।

তখন সেন্ট এ কথার বাস্তবায়ন করলেন। সেন্ট এগিয়ে এলেন এবং সকল তরুণ্যের প্রেমে আবদ্ধ যারা ছিলেন তাদের সবাইকে বিয়ে দিয়ে দেন। কিন্তু এই প্রথা বেশিদিন ধরে রাখতে পারেনি। পরবর্তী শান্ত ভ্যালেন্টাইনকে জেলে বন্দি করে রাখা হয়। যে ভক্তদের জন্য তিনি জেলে যান সে ভক্তের মধ্যে কেউ তার সাথে দেখা করতে যান। তাদের মধ্যে ছিল একজন অন্ধ মেয়ে। শোনা যায় সেন্ট ভ্যালেন্টাইন অন্ধত্ব দূর করেন। মেয়েটির চোখের দৃষ্টি ফিরে আনার পর ধর্মযাজকের আইন ভেঙে মেয়েটির সাথে গোপনে বিয়ে করেন তাকে জীবনসঙ্গী বানান। পরবর্তীতে একথা রাজা সম্রাটের কানে পৌঁছায়। পরবর্তীতে সম্রাট ভ্যালেন্টাইন এর মৃত্যুদণ্ড আদেশ দেন।

ভ্যালেন্টাইন এর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার পর ফাঁসির মঞ্চে যাওয়ার আগে প্রিয়াকে লেখা ভ্যালেন্টাইনের শেষ চিঠিতে ছিল।''love from your valentine'' আর সেই দিনটি ছিল ১৪ ফেব্রুয়ারি।। ৪৯৬ খ্রিস্টাব্দে পোপ প্রথম এই দিনটিকে 'ভ্যালেন্টাইন ডে' হিসেবে ঘোষণা করেন। ১৭০০ শতাব্দীতে জনপ্রিয় ভাবে পালন করে ব্রিটেন সরকার। ১৮০০ সালে বাণিজ্যিকভাবে ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস পালিত হয়। তখন থেকে শুরু হয়ে যায় ভ্যালেন্টাইন কার্ড উপহার দেওয়া নেওয়া। পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো ভ্যালেন্টাইন কার্ডটি সুরক্ষিত আছে লন্ডনের ব্রিটিশ মিউজিয়ামে। পাঠক, নিশ্চয়ই আপনাদের বলতে পেরেছি, ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস সম্পর্কে।

সর্বশেষ কথা

বন্ধুরা, আশা করি এতক্ষণ বুঝতে পেরেছেন ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে। দোয়া করি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ছড়িয়ে পড়ুক সবার মাঝে। আজকের পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়লে আপনি খুব সহজে বুঝতে পারবেন ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস সম্পর্কে। ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস সম্পর্কে যদি আপনার কোন মতামত থেকে থাকে তাহলে নিশ্চয়ই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন। এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে পোস্ট করার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন