রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব - আসসালামু আলাইকুম। রমজানের প্রথম ১০ দিনকে রহমত ও বরকত বলা হয়। বর্তমান রমজান মাস চলছে। তাই আমাদের রমজান মাসের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব তা সম্পর্কে জানা জরুরী। কারণ এই মাসে মহান আল্লাহ তায়ালার রহমত নাযিল হয়। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব তা জেনে নিন।

রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমাদের আজকের আর্টিকেলটি রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব তা পড়েন। তাহলে আপনি রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব তা জানতে পারবেন। আসুন, তাহলে জেনে নেই,রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব।

ভূমিকাঃ রমজানের প্রথম দশ দিন কি আমল করব

প্রতিটি মুসলিম ব্যক্তিবর্গ জানে যে রমজান মাসে ৩০ দিনকে তিনটি বিভক্তে ভাগ করা হয়েছে।প্রতিটা মুসলমানের কাছে রমজান মাস একটি বরকত মাস হিসেবে চিহ্নিত। রমজান মাসে আল্লাহর দেওয়া বিশেষ কিছু নিয়ামত রয়েছে যা আমাদের সকলের জানা জরুরী। রমজানের প্রথম দশ দিন হল রহমত। রমজানের প্রথম ১০ দিনে আল্লাহ তায়ালার রহমত সকল মুসলমানের ওপর বর্ষিত হয়।

অনেকেই আছেন যারা রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানেন না। তাই আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব এ সম্পর্কে জানতে পারবেন।

আজকের আর্টিকেলে আমরা রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সহ রমজানের প্রথম ১০ দিনের দোয়া রমজানের প্রথম দশ দিনের ফজিলত সম্পর্কে আপনাদের সামনে বিস্তারিত সকল তথ্য জানাবো।

রমজানে প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

রমজান মাস একটি পবিত্র মাস সকল মুসলিমদের কাছে মর্যাদা সম্পন্ন মাস। রমজান মাসকে আবার তিন ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। প্রথম ১০ দিন রহমত তারপরের দ্বিতীয় দশ দিন মাগফেরাত এবং তৃতীয় দশ দিন নাজাত। রমজান মাস সকল মুসলিমদের জন্য ইবাদতের গুরুত্ব রয়েছে।

রমজান মাসের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ আমল হিসেবে আমরা সকলে রোজা পালন করে থাকি। আজকের আপনাদের রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সম্পর্কে আমরা বিস্তারিত ভাবে জানাবো। তাহলে আর কথা না বাড়িয়ে আসুন, রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

মুসলিম ও ঈমানদার বান্দাদের রমজানের আমলের প্রতি গুরুত্ব ও নজর দেওয়া উচিত। রমজান মাস বছরের একটি মাস। বছরে একবারই রমজান মাস আমাদের মাঝে এসে উপস্থিত হয়। তাই আমাদের রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সে সম্পর্কে আমাদের প্রত্যেকের জ্ঞান থাকা জরুরী। রমজান মাসের প্রথম দশ দিন কে রহমতের দিন বলা হয়ে থাকে এই ১০ দিনে আল্লাহ তাআলার অশেষ রহমত সকল মুসলমানের উপর বর্ষিত হয়।

রমজান মাসের প্রতিটা দিনই মহান আল্লাহতালা আমাদের জন্য রহমত নাযিল করে থাকেন। কিন্তু রমজানের গুরুত্বটা একটু বেশি। কারণ এই মাসটি রহমত ও বরকতের মাস এবং আল্লাহ তায়ালা সন্তুষ্টি অর্জনের মাস। তাই রমজানের প্রথম ১০ দিনে আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলের উপর অনেক বেশি বরকত নাযিল করেছেন।

রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

হযরত মোহাম্মদ সাঃ এরশাদ করেছেন "তোমাদের মাঝে রমজান এসে হাজির হয়েছে, এটি অত্যন্ত বরকতপূর্ণ মাস। এ মাসের রোজা আল্লাহ তোমাদের উপর ফরজ করেছেন। এই মাসে রহমতের দরজা গুলো তোমাদের জন্য খুলে যায়, জাহান্নামের সকল দরজা গুলোকে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

ইবলিশ শয়তানদের লোহার শিকল পরিয়ে আটকে রাখা হয়। রমজান মাসের একটি রাত রয়েছে যে রাতটিকে শবে কদর বলা হয়। শবে কদরের এ রাতের ইবাদত হাজার বছরের চাইতে সর্বোত্তম। যে ব্যক্তি শবে কদরের রাতের মহাকল্যান থেকে বঞ্চিত থাকলো। সে প্রকৃত সবকিছু থেকে বঞ্চিত থাকলো"

পবিত্র রমজান মাসে কোরআন নাযিল বা অবতীর্ণ করা হয়েছে। এ মাসের সর্বোত্তম আমল হলো- সহিহভাবে কোরআন করা। আর কোরআন শিক্ষা করা ফরজ করা হয়েছে। কেননা কোরআনে বলা হয়েছে, ‘পড়ো তোমার রবের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন।’ (সুরা আলাক, আয়াত : ০১)

রমজান মাসে আল্লাহ তায়ালার রহমত ও বরকত অনেক বেশি বর্ষণ হয়ে থাকে। তাই রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব হিসেবে আপনাকে তওবা ও ইস্তেগফার এবং বেশি বেশি দরুদ পাঠ করতে হবে এবং বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করতে হবে। রমজান মাসের প্রতিটা মুহূর্তই আল্লাহ তাআলার বরকতপূর্ণ ।

তাই এই মাসের প্রতিটা মুহূর্তই আমরা আল্লাহ তাআলার জিকির এর মাধ্যমে পার করব। আল্লাহ তাআলার অশেষ রহমত পারে আমাদের জীবনে কল্যাণ ও মঙ্গল বয়ে আনতে।

পবিত্র মাহে রমজানের প্রথম দশ দিন নামাজ রোজা ও ইস্তেগফারের মাধ্যমে দিনগুলো পার করতে হবে। ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালার দিকে বান্দার যত দ্রুত , সম্ভব এগিয়ে যায়। তার চেয়ে বেশি দ্রুত আল্লাহতালা তার বান্দার দিকে এগিয়ে আসে। তাই আমাদের সকলের উচিত আল্লাহর রহমত লাভের জন্য রমজানের প্রথম ১০ দিন আল্লাহ তায়ালার জিকির, কোরআন তেলাওয়াত, তওবা ইস্তেগফারের মাধ্যমে করা।

রমজানের প্রথম ১০ দিনের দোয়া

বর্তমানে পবিত্র মাহে রমজান মাস চলছে, রমজান মাস অনেক ত্যাগ ও ধৈর্যের  মাস। এ মাসের একটি নফল ইবাদতের জন্য আল্লাহতালা বলেছেন, সত্তর গুণ নেকি বৃদ্ধি করে দিবেন। তাই  রমজান মাস অনেক গুরুত্বতার সাথে পার করব ইনশাআল্লাহ। এই মাসের প্রতিটা মুহূর্ত যেন আমরা আল্লাহ তাআলার ইবাদতে কাজে লাগাতে পারি। আল্লাহ যেন আমাদের তৌফিক দান করেন।

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব সম্পর্কে আপনাদের ইতিমধ্যে জানিয়েছি। আপনারা যারা রমজানের প্রথম ১০ দিনে দোয়া সম্পর্কে জানতে চান তারা আমাদের আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত। পড়তে থাকুন।

রমজানের প্রথম ১০ দিনে যে দোয়াগুলো পড়বেন  তা দেওয়া হল:

১ম রোজার দোয়া আরবি:  الیوم الاوّل : اَللّـهُمَّ اجْعَلْ صِیامی فیهِ صِیامَ الصّائِمینَ، وَقِیامی فیهِ قیامَ الْقائِمینَ، وَنَبِّهْنی فیهِ عَنْ نَوْمَةِ الْغافِلینَ، وَهَبْ لى جُرْمی فیهِ یا اِلـهَ الْعالَمینَ، وَاعْفُ عَنّی یا عافِیاً عَنْ الْمجْرِمینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ; আমার আজকের রোজাকে প্রকৃত রোজাদারদের রোজা হিসেবে গ্রহণ কর। আমার নামাজকে কবুল কর প্রকৃত নামাজীদের নামাজ হিসেবে। আমাকে জাগিয়ে তোলো গাফিলতির ঘুম থেকে। হে জগত সমূহের প্রতিপালক; এদিনে আমার সব গুনাহ মাফ করে দাও। ক্ষমা করে দাও আমার যাবতীয় অপরাধ। হে অপরাধীদের অপরাধ ক্ষমাকারী।

২য় রোজার দোয়া আরবি: الیوم الثّانی : اَللّـهُمَّ قَرِّبْنی فیهِ اِلى مَرْضاتِکَ، وَجَنِّبْنی فیهِ مِنْ سَخَطِکَ وَنَقِماتِکَ، وَوَفِّقْنی فیهِ لِقِرآءَةِ ایـاتِکَ بِرَحْمَتِکَ یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ .

বাংলা অর্থ: হে আল্লাহ; তোমার রহমতের উসিলায় আজ আমাকে তোমার সন্তুষ্টির কাছাকাছি নিয়ে যাও। দূরে সরিয়ে দাও তোমার ক্রোধ আর গজব থেকে। আমাকে তৌফিক দাও তোমার পবিত্র কোরআনের আয়াত তেলাওয়াত করার। হে দয়াবানদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ দয়াময়।

৩য় রোজার দোয়া আরবি: الیوم الثّالث : اَللّـهُمَّ ارْزُقْنی فیهِ الذِّهْنَ وَالتَّنْبیهَ، وَباعِدْنی فیهِ مِنَ السَّفاهَةِ وَالَّتمْویهِ، وَاجْعَلْ لى نَصیباً مِنْ کُلِّ خَیْر تُنْزِلُ فیهِ، بِجُودِکَ یا اَجْوَدَ الاْجْوَدینَ.

বাংলা অর্থঃ  হে আল্লাহ, আজকের দিনে আমাকে সচেতনতা ও বিচক্ষণতা দান কর। আমাকে দূরে রাখ অজ্ঞতা, নির্বুদ্ধিতা ও ভ্রান্ত কাজ-কর্ম থেকে। এ দিনে যত ধরণের কল্যাণ দান করবে তার প্রত্যেকটি থেকে তোমার দয়ার উসিলায় আমাকে উপকৃত কর। হে দানশীলদের মধ্যে সর্বোত্তম দানশীল।

রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

৪র্থ রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم الرّابع : اَللّـهُمَّ قَوِّنی فیهِ عَلى اِقامَةِ اَمْرِکَ، وَاَذِقْنی فیهِ حَلاوَةَ ذِکْرِکَ، وَاَوْزِعْنی فیهِ لاِداءِ شُکْرِکَ بِکَرَمِکَ، وَاحْفَظْنی فیهِ بِحِفْظِکَ وَسَتْرِکَ، یا اَبْصَرَ النّاظِرینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ; এ দিনে আমাকে তোমার নির্দেশ পালনের শক্তি দাও। তোমার জিকিরের মাধুর্য আমাকে আস্বাদন করাও। তোমার অপার করুণার মাধ্যমে আমাকে তোমার কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপনের জন্য প্রস্তুত কর। হে দৃষ্টিমানদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ দৃষ্টিমান। আমাকে এ দিনে তোমারই আশ্রয় ও হেফাজতে রক্ষা কর।

৫ম রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم الخامس : اَللّـهُمَّ اجْعَلْنی فیهِ مِنْ الْمُسْتَغْفِرینَ، وَاجْعَلْنی فیهِ مِنْ عِبادِکَ الصّالِحینَ اْلقانِتینَ، وَاجْعَلنی فیهِ مِنْ اَوْلِیائِکَ الْمُقَرَّبینَ، بِرَأْفَتِکَ یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ, এই দিনে আমাকে ক্ষমা প্রার্থনাকারীদের অন্তর্ভুক্ত কর। আমাকে শামিল কর তোমার সৎ ও অনুগত বান্দাদের কাতারে। হে আল্লাহ ! মেহেরবানী করে আমাকে তোমার নৈকট্যলাভকারী বন্ধু হিসেবে গ্রহণ কর। হে দয়াবানদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ দয়াবান।

৬ষ্ঠ রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم السّادس : اَللّـهُمَّ لا تَخْذُلْنی فیهِ لِتَعَرُّضِ مَعْصِیَ، وَلاتَضْرِبْنی بِسِیاطِ نَقِمَتِکَ، وَزَحْزِحْنی فیهِ مِنْ مُوجِباتِ سَخَطِکَ، بِمَنِّکَ وَاَیادیکَ یا مُنْتَهى رَغْبَةِ الرّاغِبینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ; তোমার নির্দেশ অমান্য করার কারণে এ দিনে আমায় লাঞ্ছিত ও অপদস্থ করোনা। তোমার ক্রোধের চাবুক দিয়ে আমাকে শাস্তি দিও না। সৃষ্টির প্রতি তোমার অসীম অনুগ্রহ আর নিয়ামতের শপথ করে বলছি তোমার ক্রোধ সৃষ্টিকারী কাজ থেকে আমাকে দূরে রাখো। হে আবেদনকারীদের আবেদন কবুলের চূড়ান্ত উৎস।

৭ম রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم السّابع : اَللّـهُمَّ اَعِنّی فِیهِ عَلى صِیامِهِ وَقِیامِهِ، وَجَنِّبْنی فیهِ مِنْ هَفَواتِهِ وَآثامِهِ، وَارْزُقْنی فیهِ ذِکْرَکَ بِدَوامِهِ، بِتَوْفیقِکَ یا هادِیَ الْمُضِلّینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ; এ দিনে আমাকে রোজা পালন ও নামাজ কায়েমে সাহায্য কর। আমাকে অন্যায় কাজ ও সব গুনাহ থেকে রক্ষা করো। তোমার তৌফিক ও শক্তিতে সবসময় আমাকে তোমার স্মরণে থাকার সুযোগ দাও। হে পথ হারাদের পথ প্রদর্শনকারী।

৮ম রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم الثّامن : اَللّـهُمَّ ارْزُقْنی فیهِ رَحْمَةَ الاَْیْتامِ، وَاِطْعامَ اَلطَّع، وَاِفْشاءَ السَّلامِ، وَصُحْبَةَ الْکِرامِ، بِطَولِکَ یا مَلْجَاَ الاْمِلینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ; তোমার উদারতার উসিলায় এ দিনে আমাকে এতিমদের প্রতি দয়া করার, ক্ষুধার্তদের খাদ্য দান করার, শান্তি প্রতিষ্ঠা করার ও সৎ ব্যক্তিদের সাহায্য লাভ করার তৌফিক দাও। হে আকাঙ্খাকারীদের আশ্রয়স্থল।

৯ম রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم التّاسع : اَللّـهُمَّ اجْعَلْ لی فیهِ نَصیباً مِنْ رَحْمَتِکَ الْواسِعَةِ، وَاهْدِنی فیهِ لِبَراهینِکَ السّاطِعَةِ، وَخُذْ بِناصِیَتی اِلى مَرْضاتِکَ الْجامِعَةِ، بِمَحَبَّتِکَ یا اَمَلَ الْمُشْتاقینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ, এদিনে আমাকে তোমার রহমতের অধিকারী কর। আমাকে পরিচালিত কর তোমার উজ্জ্বল প্রমাণের দিকে। হে আগ্রহীদের লক্ষ্যস্থল। তোমার ভালোবাসা ও মহব্বতের উসিলায় আমাকে তোমার পূর্ণাঙ্গ সন্তুষ্টির দিকে নিয়ে যাও।

১০ম রোজার দোয়া আরবিঃ الیوم العاشر : اَللّـهُمَّ اجْعَلْنی فیهِ مِنَ الْمُتَوَکِّلینَ عَلَیْکَ، وَاجْعَلْنی فیهِ مِنَ الْفائِزینَ لَدَیْکَ، وَاجْعَلْنی فیهِ مِنَ الْمُقَرَّبینَ اِلَیْکَ، بِاِحْسانِکَ یا غایَةَ الطّالِبینَ .

বাংলা অর্থঃ হে আল্লাহ, তোমার প্রতি যারা ভরসা করেছে আমাকে সেই ভরসাকারীদের অন্তর্ভুক্ত কর। তোমার অনুগ্রহের মাধ্যমে আমাকে শামিল করো সফলকামদের মধ্যে এবং আমাকে তোমার নৈকট্যলাভকারী বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত করে নাও হে অনুসন্ধানকারীদের শেষ গন্তব্য।

সর্বশেষ কথাঃ রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, , আমাদের আজকের আর্টিকেল রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে নিশ্চয়ই রমজানের প্রথম ১০ দিন কি আমল করব তা জানতে পেরেছেন। পবিত্র রমজানের মাস বরকতময় পরিপূর্ণ একটি মাস। এ মাসে প্রত্যেকটি দিন কে মহান আল্লাহতালা তার বান্দাদের জন্য সব নাযিল করেছেন। রমজান মাসের ইবাদত সর্বোত্তম ইবাদত। 

আমাদের আজকের এই পোস্ট রমজানে প্রথম ১০ দিন কি আমল করব যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পোস্ট পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন।

Next Post Previous Post