১১টি আনারস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে জানুন

গৃষ্মকালীন একটি ফল আনারস। বিভিন্ন জেলায় চাষ করা হয়ে থাকে। এতে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি উপাদান। এটি আমাদের শরীরে পানির চাহিদা মেটায় পাশাপাশি পুষ্টিগুণে ভরপুর মৌসুমী ফল। আনারস ভিটামিন সি সমৃদ্ধ হাওয়াই বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। আসুন জেনে নেয়া যাক, আনারস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে।


বন্ধুরা, আজকের পোস্টে ভোরের আলো আইটির পক্ষ থেকে আনারস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে জানাবো বিস্তারিত জানতে শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থাকুন।

আনারস খাওয়ার উপকারিতা "উপস্থাপনা"

অত্যন্ত সুস্বাদু ও পুষ্টিকর একটি ফল আনারস। পুষ্টিকর এই ফলটি বিভিন্ন রোগ থেকে আমাদের রক্ষা করে থাকে। আনারস ভিটামিন এ ও সি সমৃদ্ধ একটি ফল। এছাড়াও আনারসে রয়েছে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। তাহলে দেরি না করে জেনে নেয়া যাক, আনারস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

আনারস খাওয়ার ১১টি উপকারিতা

হৃদপিন্ড ভালো রাখতে

আনারস অক্সিজেনযুক্ত রক্ত সরবরাহ করে থাকে। আনারস শরীরের ভেতরে থাকা খারাপ রক্ত দূর করে। ফলে হৃদপিণ্ড ভালো রাখতে সাহায্য করে।

দৃষ্টি ভালো রাখতে 

আনারসে রয়েছে বেটা ক্যারোটিন যা চোখের দৃষ্টি ভালো রাখতে সাহায্য করে। চোখে পানি পড়া, চোখে ওঠা, চোখে চুলকানি হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

শরীর সুস্থ রাখতে

আনারসে ব্রমেলাইন উপাদান আছে। যা দিয়ে হজমশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। নিয়মিত আনারস খেলে শরীর সুস্থ রাখতে বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

ক্যালসিয়াম ও হাড় গঠনে 

আনারসে থাকা ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম উপাদান। ক্যালসিয়াম ও হাড় গঠনে গুরুত্বপূর্ণ। ম্যাঙ্গানিজ হাতকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। নিয়মিত পরিমাণমতো আনারস ফলটি খেলে হাড়ে সমস্যা জনিত রোগের প্রতিরোধ গড়ে তোলে।

দাঁতের যত্নে 

আনারসে থাকা অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ এই ফলটি নিয়মিত খেলে দাঁতের জীবাণু ধ্বংস করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেে। দাঁতের মাড়ি শক্ত ও মজবুত করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি 

আনারসে রয়েছে ভিটামিন সি। যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। নিয়মিত পরিমাণমতো আনারস খেলে শরীরে বিভিন্ন রোগের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। ঋতু পরিবর্তনের সময় সর্দি, কাশি, জ্বর হাত থেকে রক্ষা করে থাকে।

পুষ্টি চাহিদা পূরণ 

আনারসে থাকা ভিটামিন এ, সি, ক্যালসিয়াম,পটাশিয়াম,ফসফরাস আমাদের দেহের পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

ওজন কমাতে সাহায্য করে

আনারসে আছে ফাইবার ও ফ্যাট কমানোর গুন। নিয়মিত আনারসের জুস বানিয়ে সেবন করলে দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে

আনারস থাকা ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম উপাদান। যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে। ফলে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে এবং শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি 

আনারস খেলে শরীরে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। দেহে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ রাখতে এই ফলটি খাওয়া উচিত। তবে ডায়াবেটিস রোগীরা এর ফল থেকে এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

কিডনি ভালো রাখতে

আনারসে থাকা ফসফরাস শরীরে কিডনি ভালো রাখতে সাহায্য করে। কিডনি থেকে বজ্র পদার্থকে দূর করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

সর্বশেষ কথা

বন্ধুরা, আজকের পোস্টে শেষ প্রান্তে চলে এসেছি আশা করি নিশ্চয়ই আপনাদের বুঝাতে পেরেছি আনারস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে। আনারস অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে তাই আনারসের মৌসুমে আনারস খাওয়া আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারীতা রয়েছে। তাই আমাদের সবারই আনারস খাওয়ার চেষ্টা করা উচিত। এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থেকে পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম আরো পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন।

Next Post Previous Post