সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ - সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪

আপনি যদি সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ করতে চান তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্য। বর্তমানে সাজেক ভ্যালি একটি জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য। তাই আমি আপনাদের বলব কিভাবে সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ করবেন বা সাজেক হোটেল বুকিং মূল্য সেখানে থাকার জন্য। আপনি যদি সাজেক হোটেল বা সাজেক রিসোর্ট বুকিং করতে চান তাহলে নিচে পড়ুন।

সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪

সাজেক ভ্যালিতে ভ্রমণ করার সময়, আপনার অবশ্যই থাকার জন্য একটি জায়গা প্রয়োজন। তাই আপনার প্রয়োজন অনুসারে অনেক ভালো বাসস্থানের বিকল্প রয়েছে। তার মধ্যে একটি সাজেক হোটেল। এই হোটেলে আপনি অনেক সুবিধা পাবেন। তো চলুন জেনে নিই কিভাবে সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ করবেন বা সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪।

সূচিপত্রঃ সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ - সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪

সাজেক ভ্যালি ২০২৪

সাজেক ভ্যালি রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় অবস্থিত। এটি বাংলাদেশের একটি বড় ইউনিয়ন। এর আয়তন 702 বর্গ মাইল। সাজেক ভারতের ত্রিপুরা, দক্ষিণে রাঙ্গামাটির লঙ্কাডু, পূর্বে ভারতের মিজোরাম এবং পশ্চিমে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা। সাজেক থেকে ভারতের মিজোরাম রাজ্যের সীমান্ত মাত্র ১৫ কিলোমিটার। এই সাজেক উপত্যকাটি বাঘাইহাট থেকে 34 কিলোমিটার, দীঘিনালা থেকে 49 কিলোমিটার এবং খাগড়াছড়ি সদর থেকে 70 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

যতদূর চোখ যায় শুধু সবুজ দেখা যায়। সবুজের মাঝখান থেকে ছোট-বড় অসংখ্য পাহাড় দাঁড়িয়ে আছে। দিগন্ত পর্যন্ত সবুজ আর পাহাড়ের বিশাল মেলা। যেন আকাশ থেকে মেঘের ভেলা নেমে এসেছে এই মেলার সৌন্দর্য বাড়াতে। সাদা তুলোর মতো মেঘ এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ে ঝুলে থাকে সবুজের শূন্যতা পূরণ করতে। 

পায়ের নিচে মেঘ, পাহাড় আর এত বিশাল সবুজ সমুদ্র দেখতে কার না ভালো লাগবে? সাজেক ভ্যালি বা সাজেক ভ্যালি আমাদের দেশের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন স্থান কারণ এটি দেখতে সুন্দর। তবে এখানে যেতে হলে প্রথমে সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ ও সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪ সম্পর্কে জানতে হবে।

সাজেক রিসোর্ট রিভিউ ২০২৪

সাজেক রিসোর্ট বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দ্বারা পরিচালিত একটি রিসোর্ট। এই সাজেক হোটেলে প্রথম শ্রেণীর সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ক্যাটারিং এবং বিশেষ ছাড় রয়েছে। আপনি ট্রাভেল মেটের মাধ্যমে যেকোন সময় সাজেক রিসোর্টে একটি রুম বুক করতে পারেন। কিভাবে সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ ও সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪ বিস্তারিত জানতে পড়তে থাকুন।

সাজেক রিসোর্টের এই রিসোর্টের উপরের তলায় দুই তলা ও চারটি কক্ষ রয়েছে। বেশিরভাগ দম্পতিরা এই রিসোর্টে যান। কারণ জানালা খুলে যেমন সাজেকের অপরূপ প্রকৃতি উপভোগ করা যায়, তেমনি রিসোর্টে রয়েছে ভালো খাবারও। তাছাড়া সেনাবাহিনীর অধীনে থাকায় এর নিরাপত্তা ভালো।

সাজেক হোটেল বুকিং কিভাবে দিবেন ২০২৪

সাজেক হোটেল বা রিসোর্ট বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দ্বারা পরিচালিত হয়। সুতরাং, আপনি যদি এই হোটেলে একটি রুম ভাড়া করতে চান তবে আপনাকে সেনাবাহিনীর কাছ থেকে রেফারেন্স নিতে হবে। এটি সেনাবাহিনী দ্বারা পরিচালিত হওয়ায় এর ভাড়াও অন্যান্য হোটেল বা রিসোর্টের তুলনায় একটু বেশি। 

সাজেক হোটেলের রুমের ভাড়া ১০০০০ টাকা থেকে ১৫০০০ টাকা পর্যন্ত। এসি বা নন এসি রুমের ভাড়া কমবেশি। এসি রুমের ভাড়া নন এসি রুমের তুলনায় কিছুটা বেশি। কিন্তু এখানে প্রশ্ন হল সাজেক হোটেল ২০২৪ বা সাজেক হোটেল বুকিং কিভাবে দিবেন ২০২৪।

তারপর সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ এর জন্য তাদের ফোন নম্বরে কল করতে পারেন। সাজেক হোটেলে একটি রুম বুক করার জন্য, আপনাকে সেখানে যাওয়ার কিছু সময় আগে এটি করতে হবে কারণ এই হোটেলগুলি সপ্তাহের প্রায় প্রতিদিনই বুক করা হয়। আপনি সাজেক হোটেল বুকিং কিভাবে দিবেন ২০২৪ বা সাজেক হোটেল বুক করতে যে ফোন নম্বরে কল করতে পারেন তা হল:

1. 01859-02594

2. 01847-070395

3. 01769302370

সাজেক হোটেলের সুবিধা ২০২৪

এই হোটেলটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত একটি খুব সুন্দর হোটেল বা রিসোর্ট। সেনাবাহিনী পরিচালিত হওয়ায় ভাড়া অন্যান্য রিসোর্টের তুলনায় একটু বেশি হলেও সুযোগ-সুবিধাও বেশ ভালো। 

সেনাবাহিনী বা প্রথম শ্রেণীর সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য বিশেষ ছাড় রয়েছে। সাজেক হোটেলে ভালো মানের খাবারও পাবেন। আপনি সবসময় এখানে ভাড়া কম এবং বেশি পাবেন।

সাজেক হোটেলের সুবিধা ২০২৪ হল:

  • এসি এবং নন এসি দুই ধরনের রুম পাবেন।
  • সব ধরনের রুম সার্ভিস পাওয়া যাবে।
  • বিনামূল্যে ইন্টারনেট সুবিধা পান।
  • আপনি একটি ব্যক্তিগত ব্যালকনি পাবেন.
  • আপনি সুন্দর রুম সজ্জা পাবেন।
  • 24 ঘন্টা পানি ও বিদ্যুৎ সুবিধা
  • আপনি আপনার ঘর এবং বারান্দা থেকে সাজেকের একটি সুন্দর দৃশ্য পাবেন।

সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪

এটি রাঙ্গামাটি জেলায় অবস্থিত তবে খাগড়াছড়ি থেকে সাজেক যাওয়া বেশি সুবিধাজনক। সাজেকে ঢুকতে হয় খাগড়াছড়ির দীঘিনালা আর্মি ক্যাম্প দিয়ে। মূলত, আপনাকে শুধুমাত্র আপনার আইডি এবং এখানে আসার অনুমতি নিয়ে এই ক্যাম্পে প্রবেশ করতে হবে। সাজেকে মূলত দুটি গ্রাম বা পাড়া রয়েছে। আর্মি ক্যাম্প পার হলেই প্রথম গ্রাম রুইলুই। যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে 1800 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। তাহলে কনলাক পাস হবে। এই পাড়ায় লুসাই, ত্রিপুরা ও পাংখোয়া বাস করে। সাজেক থেকে রাঙ্গামাটির বেশিরভাগ অংশ দেখা যায় বলে এটি রাঙ্গামাটি টেরেস নামেও পরিচিত।
সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪

সকাল থেকে বিকেলে সাজেকের রূপ বদলে যায়। এটি এমন লোকদের মুগ্ধ করে যারা বারবার ভ্রমণ করতে ভালোবাসে। আর তাই নিজ চোখে সাজেক ভ্যালি দেখতে পর্যটকদের ঢল। সাজে সারা বছরই পর্যটকদের ভিড় থাকে তবে প্রধানত বর্ষা, শরৎ ও শীতকালে মেঘের লুকোচুরির খেলা দেখতে বেশি পর্যটকের সমাগম ঘটে।
আর পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে অনেক রিসোর্ট ও কটেজ। আপনি আপনার পরিবার বা বন্ধুদের সাথে এই রিসোর্ট বা কটেজে থাকতে পারেন খুব ভালোভাবে। আপনি এখানে অনেক সস্তা থেকে দামী রিসোর্ট পাবেন। আমরা সবাই কম খরচে একটি ভালো জায়গা খুঁজি যাতে আপনি মানুষের চাহিদার উপর ভিত্তি করে বিস্তৃত হোটেল পাবেন। সাজেক হোটেল বুক ২০২৪ করার আগে জেনে নিন।

শেষ কথাঃ সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪ - সাজেক ভ্যালিতে সস্তা ও সেরা রিসোর্ট ২০২৪

বাংলাদেশে দেখার মত অনেক সুন্দর জায়গা আছে। দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ তা দেখতে আসে। তেমনই একটি সুন্দর, প্রাকৃতিক ও মনোরম জায়গা হল সাজেক ভ্যালি। কিন্তু আমরা যখন কোথাও যাই, প্রথম যে জিনিসটি আমাদের মাথায় আসে তা হল আমাদের কথা রাখা। 
সাজেক হোটেল বুকিং ২০২৪

এ কথা মাথায় রেখে সাজেক ভ্যালিতে অনেক ধরনের রিসোর্ট তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে সাজেক হোটেল অন্যতম রিসোর্ট। আর আপনি যদি সেখানে গিয়ে সাজেক হোটেলে থাকতে চান তাহলে উপরের আলোচনা থেকে সাজেক হোটেল বা সাজেক হোটেল বুকিং মূল্য জানতে পারবেন।
Next Post Previous Post