OrdinaryITPostAd

জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ - জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪

আপনি কি জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ এই বিষয়ে জানতে চান? তাহলে আমাদের আর্টিকেলে স্বাগতম। জিলহজ্জ মাস প্রত্যেক মুসলমানের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যপূর্ণ মাস। আর তাই সকলে জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ ? বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চান। আজকের এই আর্টিকেলে জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪? আমি এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। এছাড়া আরো জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪ জানতে পারবেন।

জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪

জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ কোন সময়? আপনি যদি এই তথ্য জানতে চান। তাহলে পুরো আর্টিকেলে জুড়ে আমাদের সাথে থাকুন। তাহলে চলুন দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪? এছাড়াও আরো জেনে নেয়া যাক, জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪।

পেজের সূচিপত্রঃ জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ - জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪

জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪

আমরা জানি যে, হিজরি বছরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাস হল জিলহজ্জ মাস। হজ, ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি, এই মাসে সঞ্চালিত হয় এবং ঈদুল আজহা, মুসলমানদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ধর্মীয় অনুষ্ঠান। আমরা অনেকেই এই বছর ২০২৪ সালের জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ? এ বিষয়ে জানি না, অনেকেই এই তথ্য জানতে চান।

এ বছর জুন মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকে জিলহজ মাস শুরু হবে। সাধারণত, বাংলা ক্যালেন্ডার অনুসারে জিলহজ মাসের প্রথম দিনটি ইংরেজি বছর অনুসারে ৮ জুন হয়। আমরা জানি যে, হিজরি মাস সম্পূর্ণরূপে চাঁদ দেখার উপর নির্ভরশীল। যেদিন চাঁদ দেখা যায় তার পরের দিন থেকে হিজরি মাসের প্রথম দিন।

সেই অনুযায়ী, ১৭ জুন ২০২৪ হবে ১০ জিলহজ্জ। ৭ জুন রাতে আকাশে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেলে ৮ তারিখ থেকে জিলহজ মাস শুরু হবে। ইংরেজি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১৭ জুন রোজ সোমবার জিলহজ মাসের ১০ তারিখ হবে। আশা করি ২০২৪ সালের জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ? বিষয়টি সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন।

জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪

মুসলমানদের জন্য বছরের সবচেয়ে বড় দুটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান হল ঈদুল আজহা। কোরবানির ঈদে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য আল্লাহর জন্য প্রিয় জিনিস কুরবানী করতে হয়। যেহেতু রোজার ঈদ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে এবং আমরা অনেকেই জানি যে রোজার ঈদ পূর্ণ হওয়ার দুই মাস পরে কোরবানির ঈদ।

জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪? এ বিষয়ে আমার কোনো ধারণা নেই। যেহেতু ঈদ-উল-আযহা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় অনুষ্ঠান, তাই ২০২৪ সালের ঈদুল আযহার তারিখ কী? কী কী উদযাপন হবে সে সম্পর্কে আগে থেকেই ধারণা থাকতে হবে। আমরা জানি যে জিলহজ্জের ১০ তারিখে ঈদুল আযহা পালিত হয়।

বাংলা ও আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, এ বছর জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা যাবে ৭ জুন রাতে। এরপর ৮ জুন থেকে জিলহজ মাস শুরু হবে এবং ১৭ জুন হবে জিলহজ মাসের ১০ম দিন। যেহেতু আরবি মাস সম্পূর্ণরূপে চাঁদ দেখার উপর নির্ভরশীল। তাই ১৬ তারিখ রাতে চাঁদ দেখা গেলে ১৭ জুন ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে।

জিলহজ্জ মাসের রোজা কয়টি

জিলহজ মাসে রোজা রাখার কথা আমরা অনেকেই জানি, কিন্তু জিলহজ মাসে কয়টি রোজা? এ বিষয়ে কোনো ধারণা নেই। যেহেতু এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত এবং আল্লাহ তায়ালার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তাই জিলহজ মাসে কয়টি রোজা? সে সম্পর্কেও আমাদের ধারণা থাকতে হবে।

জিলহজ মাসের চাঁদ উঠার পর থেকে অর্থাৎ জিলহজ মাসের ১ তারিখ থেকে ৯ই জিলহজ পর্যন্ত দিনে রোজা রাখা এবং রাতে বেশি বেশি প্রার্থনা করা একজন মুসলমানের দায়িত্ব ও কর্তব্য। প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, জিলহজের প্রথম দশ দিনের ইবাদতের চেয়ে আল্লাহর কাছে প্রিয় কোনো দিন নেই। জিলহজ মাসের প্রথম দশকে প্রতিদিন রোজা রাখা এক বছরের রোজার সমতুল্য। আর প্রতিটি রাতের ইবাদত লাইলাতুল কদরের সমতুল্য।'{তিরমিযী}

জিলহজ্জ মাসের ১ তারিখ থেকে ৯ তারিখ পর্যন্ত নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির তাওয়াস্তেগফার ইত্যাদি বেশি বেশি করতে হবে। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, 'আমাকে ঈদুল আজহার অর্থাৎ ১০ জিলহজ্জের ঈদ উদযাপনের আদেশ দেওয়া হয়েছে, যা আল্লাহ এই মতের জন্য আদেশ করেছেন।'

অতঃপর এক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করল, হে আল্লাহর নবী, আমার যদি কুরবানী করার সামর্থ্য না থাকে, কিন্তু আমার কাছে একটি উট বা ছাগল আসে যা আমি দোহন ও মালামাল বহনের জন্য রাখি, তাহলে আমি কি তা কুরবানী করব? আল্লাহর নবী বললেন, না, বরং তুমি তোমার মাথার চুল ও গোঁফ কেটে নাভির নিচের চুল পরিষ্কার কর। এগুলো আল্লাহর কাছে তোমাদের কোরবানি।

ঈদুল আজহা কত তারিখ পালিত হবে ২০২৪

ঈদুল আজহা মধ্যপ্রাচ্যের প্রধান অনুষ্ঠানের একটি। সাধারণত, ঈদুল আজহা কত তারিখে হবে? কারণ এ বিষয়ে জানতে হিজরি মাস সম্পূর্ণ দেখার জন্য চাঁদের উপর নির্ভরশীল। কিন্তু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী দুই দিন কম বা বেশি হতে পারে। বছর শুরু হয় ক্যালেন্ডার ব্যাখ্যা অনুসারে।

ঈদুল আজহা কত তারিখ পালিত হবে ২০২৪

যেমন ঈদুল আজহা প্রত্যেকের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু ঈদুল আজহা কত তারিখে উদযাপিত হবে? এ সম্পর্কে আমাদের আগে তথ্য জানানো হবে। প্রতি বছর জিলহজ ১০ তারিখে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়।

এ বছর ইংরেজি ও হিজরি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১৭ জুন হবে ১০ জিলহজ। তাই আমরা বলতে পারি যে ১৭ জুন ঈদুল আজহা পালিত হবে।

জিলহজ্জ মাসের ক্যালেন্ডার ১৪৪৫

ইংরেজী তারিখ - বার - হিজরী তারিখ

৮ - জুন - ২০২৪ - শনি - ১ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫ 

৯ - জুন - ২০২৪ - রবি - ২ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১০ - জুন - ২০২৪ - সোম - ৩ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১১ - জুন - ২০২৪ - মঙ্গল - ৪ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১২ - জুন - ২০২৪ - বুধ - ৫ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৩ - জুন - ২০২৪ - বৃহস্পতি - ৬ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৪ - জুন - ২০২৪ - শুক্র - ৭ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৫ - জুন - ২০২৪ - শনি - ৮ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৬ - জুন - ২০২৪ - রবি - ৯ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৭ - জুন - ২০২৪ - সোম - ১০ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৮ - জুন - ২০২৪ - মঙ্গল - ১১ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১৯ - জুন - ২০২৪ - বুধ - ১২ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২০ - জুন - ২০২৪ - বৃহস্পতি - ১৩ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২১ - জুন - ২০২৪ - শুক্র - ১৪ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২২ - জুন - ২০২৪ - শনি - ১৫ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৩ - জুন - ২০২৪ - রবি - ১৬ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৪ - জুন - ২০২৪ - সোম - ১৭ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৫ - জুন - ২০২৪ - মঙ্গল - ১৮ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৬ - জুন - ২০২৪ - বুধ - ১৯ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৭ - জুন - ২০২৪ - বৃহস্পতি - ২০ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৮ - জুন - ২০২৪ - শুক্র - ২১ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২৯ - জুন - ২০২৪ - শনি - ২২ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

৩০ - জুন - ২০২৪ - রবি - ২৩ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

১ - জুলাই - ২০২৪ - সোম - ২৪ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

২ - জুলাই - ২০২৪ - মঙ্গল - ২৫ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

৩ - জুলাই - ২০২৪ - বুধ - ২৬ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

৪ - জুলাই - ২০২৪ - বৃহস্পতি - ২৭ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

৫ - জুলাই - ২০২৪ - শুক্র - ২৮ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

৬ - জুলাই - ২০২৪ - শনি - ২৯ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫
৭ - জুলাই - ২০২৪ - রবি - ৩০ - জিলহজ্জ - ১৪৪৫

জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিনের আমল সমূহ

জিলহজ মাসটি ১২টি আরবি মাসের শেষ এবং আল্লাহ তায়ালার কাছে সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ চারটি মাসের মধ্যে একটি। জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই একজন মুসলিম হিসেবে আমাদের জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিনের আমল সম্পর্কে জানা উচিত। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা জিলহজ মাসের প্রথম দশ রাতের শপথ করেছেন।

জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিনের আমল নিম্নে উল্লেখ করা হলঃ
  • তাকবীর ও তাসবীহ পাঠ করা
  • দিনের বেলা রোজা রাখা
  • রাতে নফল ইবাদত
  • আরাফাতের দিনে রোজা রাখা
  • তাকবীরে তাশরীক পাঠ করা
  • বিশেষ অনুশীলন
  • পারলে কোরবানি দাও
তাকবীর ও তাসবীহ পাঠ করাঃ জিলহজ্জের প্রথম ১০ দিনে তাকবীর অর্থাৎ আল্লাহু আকবার ও তাহমিদ আলহামদুলিল্লাহ, তাহলীল অর্থাৎ লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ এবং তাসবীহ অর্থাৎ সুবহানাল্লাহ পাঠ করা সুন্নত। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘এই দশ দিনের নেক আমলের চেয়ে আল্লাহর কাছে প্রিয় ও মহৎ কোনো আমল নেই। তাই এ সময় তাহলীল, তাকবীর ও তাহমিদ বেশি বেশি পড়।'

দিবাগত রোজা: দিনের রোজা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত, বিশেষ করে জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিনে। হাদিস শরিফে আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সা.) জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিনের প্রতিটি রোজাকে সারা বছরের রোজার সঙ্গে তুলনা করেছেন। তাই সুস্থ থাকলে আমাদের অবশ্যই জিলহজ মাসের প্রথম দশ দিন রোজা রাখতে হবে।

রাতে নফল ইবাদত করা: জিলহজ মাসের প্রথম দশ দিনে রোজা রাখা এবং রাতে নফল ইবাদত করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাতে যদি নফল ইবাদত করা যায় তাহলে আল্লাহ অনেক খুশি হন। আমাদের প্রিয় নবী (সা.) জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিনের প্রতিটি রাতের ইবাদতকে লাইলাতুল কদরের সঙ্গে তুলনা করেছেন। রাসুলুল্লাহ (সাঃ)-এর একজন স্ত্রী বলেন যে, তিনি জিলহজের প্রথম নয় দিন এবং আশুরার দিনে রোজা রাখতেন। আর প্রতি মাসে সোম ও বৃহস্পতিবার তিন দিন রোজা রাখতেন।

আরাফাতের দিনে রোজা রাখা: যারা হজে যান তারা সাধারণত হজের কার্যক্রমের অংশ হিসেবে জিলহজ মাসের নবম তারিখে আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করেন। এই দিনে রোজা রাখার অনেক ফজিলত রয়েছে। আমাদের প্রিয় নবী বলেছেন, 'আরাফার দিনে রোজা রাখলে বিগত বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যায় এবং আশুরার রোজা রাখলে বিগত বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যায়।' (তিরমিজি : ১৫৭)

তাকবীরে তাশরীক পাঠ করাঃ জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিনের আমলের একটি হলো তাকবীরে তাশরীক পাঠ করা। বিশেষ করে নয় জিলহজের ফজর থেকে ১৩ই জিলহাদের আসর পর্যন্ত প্রত্যেক ফরজ নামাযের পর এটি পড়তে হবে। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘নির্দিষ্ট দিনে আল্লাহকে স্মরণ কর। {সূরা বাকারা : ২০৩}

বিশেষ আমল করা: জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা থেকে শুরু করে কোরবানির পশু জবাই করা পর্যন্ত কুরবানীকারীর জন্য বেশ কিছু আমল রয়েছে। উপরোক্ত মেয়াদ পর্যন্ত আল্লাহর নামে কুরবানীকারীকে মাথার চুল, শরীরের কোন চুল ও নখ কাটা থেকে বিরত থাকতে হবে।

সামর্থ্য থাকলে কোরবানি: ত্যাগের ফজিলত সম্পর্কে আমরা সবাই জানি। পারলে ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। হজরত যায়েদ বিন আরকাম (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, সাহাবায়ে কেরাম আল্লাহর রাসূলকে জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসূল! কোরবানি কি? তিনি বললেন, 'তোমার পিতা ইব্রাহিমের সুন্নত।'

জিলহজ্জ মাসের ফজিলত

জিলহজ্জ হিজরি বছরের ১২ মাসের শেষ মাস। জিলহজ্জ মাস আল্লাহ তায়ালার কাছে চারটি সম্মানিত মাসের একটি। জিলহজ্জ মাসের অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। ২০২৪ সালের ১০ই জিলহজ আমরা ইতিমধ্যে এ বিষয়ে জেনেছি। একজন প্রকৃত মুসলিম হিসেবে আমাদের অবশ্যই জিলহজ্জ মাসের ফজিলত সম্পর্কে জানতে হবে।

জিলহজ্জের ১০ তারিখে ঈদুল আযহা উদযাপনের মাধ্যমে প্রতিটি ধর্মপ্রাণ মুসলমান আল্লাহর প্রিয় বান্দা হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও হজরত ইসমাইল (আ.)-এর অতুলনীয় আনুগত্য ও মহান আত্মত্যাগের পবিত্র স্মৃতি বহন করে। মুসলিম উম্মাহ আল্লাহকে খুশি করার জন্য প্রতি বছর হজ করে এবং পশু কোরবানি করে।

একজন মুমিন সর্বদা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য সর্বস্ব ত্যাগ করতে প্রস্তুত থাকে, সেই ত্যাগে উদ্বুদ্ধ হয়ে হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও তাঁর সমগ্র পরিবারের আত্মত্যাগের নজিরবিহীন ইতিহাস মানুষকে শিক্ষা দেয়।

হজরত ইব্রাহিম (আ.) এবং তাঁর প্রিয় পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.) এবং মা হাজর (আ.) হজের অংশ হিসেবে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা'লার প্রতি তাদের গভীর ভালোবাসা প্রকাশ করেছিলেন। আর এই হজ ও কোরবানি সম্পন্ন হয় পবিত্র জিলহজ মাসে। ফলে ইসলামে জিলহজ মাসের গুরুত্ব অনেক ব্যাপক।

মাস হিসেবে রমজান এবং দিন হিসেবে এই দশক শ্রেষ্ঠ ও মর্যাদাপূর্ণ। আল্লাহ তায়ালা বলেন, তারা নির্দিষ্ট দিনে আল্লাহর নাম স্মরণ করে। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, এখানে নির্দিষ্ট দিন দ্বারা জিলহজ মাসের প্রথম দশককে বোঝানো হয়েছে।

জিলহজ্জ মাসের নবম দিন ও রাত আল্লাহর কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এ দিনটি আরাফাত ময়দানে জমায়েতের দিন। আর রাত হচ্ছে মুযদালিফায় অবস্থানের রাত। বিশেষ করে জিলহজ মাসের ৯ তারিখে রোজা রাখার ব্যাপারে নবীজি সবচেয়ে বেশি আশাবাদী ছিলেন যে, যে ব্যক্তি এই দিনে রোজা রাখবে তার বিগত বছরের এবং বিগত বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যাবে।

জিলহজ্জ মাসের ১০ দিনের করনীয় ও বর্জনীয়

উপরোক্ত আলোচনা থেকে আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি যে জিলহজ মাস একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও ফজিলতপূর্ণ মাস। তাই জিলহজ্জের ১০ দিনের করণীয় ও করণীয় সম্পর্কে আমাদের অবশ্যই জ্ঞান থাকতে হবে। নিচে জিলহজ্জের ১০ দিনের করণীয় ও করণীয় উল্লেখ করা হলো।

জিলহজ্জ মাসে করণীয়ঃ

1. জিলহজ মাসের প্রথম 10 দিনে নফল নামায ও রোজা রাখা খুবই ফজিলতপূর্ণ। কারণ জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিনের একটি রোজা এক বছরের রোজার সমতুল্য। আর রাতে ইবাদত করা লাইলাতুল কদরের ইবাদতের সমান। তাই আমরা জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিন রোজা রাখব এবং বেশি বেশি রাত নফল নামাজ পড়ব।

2. জিলহজ মাসের 9 তারিখে অর্থাৎ আরাফার দিনে রোজা রাখা। আমাদের প্রিয় নবী বলেছেন, যে ব্যক্তি আরাফাতের দিন রোজা রাখবে, আল্লাহ তার বিগত ও পরের বছরের গুনাহ মাফ করে দেবেন। যারা হজ পালনের জন্য আরাফাহ ময়দানে অবস্থান করবেন তাদের ক্ষেত্রে এ আইন প্রযোজ্য হবে না।

3. জিলহজ্জের 11, 12, 13 তারিখের বেশি তেলাওয়াত করা। বেশি বেশি কালেমা তাইয়্যবা আল্লাহু আকবার ও আলহামদুলিল্লাহ পাঠ করা। আল্লাহ তায়ালা বলেন, তিনি চার পায়ের প্রাণী থেকে যা দিয়েছেন তার উপর নির্দিষ্ট দিনে তিনি আল্লাহর নাম পাঠ করতে পারেন। {সূরা হজ : ২৮}

4. জিলহজ্জ মাসের প্রথম 10 দিনের একটি আমল হল তাকবীরে তাশরীক পাঠ করা। বিশেষ করে ৯ই জিলহজের ফজর থেকে ১৩ই জিলহাদের আসর পর্যন্ত প্রত্যেক ফরজ নামাযের পর এটি পড়তে হবে। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘নির্দিষ্ট দিনে আল্লাহকে স্মরণ কর। {সূরা বাকারা : ২০৩}

জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিনের বর্জনীয়ঃ

1. জিলহজ মাস আল্লাহ তায়ালার কাছে চারটি সম্মানিত মাসের একটি। জিলহজ্জ মাসের প্রথম ১০ দিন সারা বছরের গুনাহ মাফের সময়। আল্লাহ তায়ালা বলেন, "নিশ্চয়ই, যেদিন থেকে আসমান ও যমীন সৃষ্টি হয়েছে, সেই দিন থেকে আল্লাহর বিধান অনুসারে আল্লাহর নিকটতম মাস হিসাবে 12টি মাস রয়েছে। এর মধ্যে চারটি মাস সুপ্রতিষ্ঠিত আইন। আপনি এতে ভুল করবেন না।"

2. জিলহজের ১০ তারিখ থেকে ১৩ তারিখ পর্যন্ত রোজা রাখা নিষিদ্ধ। কারণ আল্লাহ তায়ালা এই চারদিনের মেহমানদারি করেছেন, তাই যে ব্যক্তি এই চারদিন রোজা রাখে সে আল্লাহর মেহমানদারি অস্বীকার করছে। তাই আমরা জিলহজ মাসের ১০ তারিখ থেকে ১৩ তারিখ পর্যন্ত রোজা রাখা থেকে বিরত থাকব।

জিলহজ্জ মাসে চুল নখ কাটার বিধান

আমরা জানি যে জিলহজ্জ মাস হিজরি বছরের শেষ মাস এবং জিলহজ্জ মাসটি হিজরি বছরের চারটি মাসের মধ্যে আল্লাহ তায়ালার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জিলহজ মাসের ১০ তারিখে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় অনুষ্ঠান ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়। জিলহজ্জ মাসের প্রথম থেকে দশম পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের আমল রয়েছে।

এই কাজগুলো করা খুবই পুণ্যের কাজ। হজ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি যা জিলহজ্জ মাসে করা হয়। জিলহজ্জ মাসে চুল ও নখ কাটার নিয়ম সম্পর্কে আমাদের অধিকাংশেরই ধারণা নেই। একজন প্রকৃত মুসলমান এবং আল্লাহর নামে কোরবানিকারী হিসেবে জিলহজ মাসে চুল ও নখ কাটার নিয়ম জানা জরুরি।

আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি জিলহজ্জ মাসে কুরবানী করবে সে যেন কুরবানী পর্যন্ত তার শরীরের চুল ও নখ না কাটে। অর্থাৎ কোন ব্যক্তি আল্লাহর নামে কুরবানী করার নিয়ত করলে জিলহজ্জ মাসের চাঁদ উঠার পর থেকে কুরবানী না করা পর্যন্ত তার নখ, মাথার চুল বা শরীরের লোম কাটবে না।

অনেকে মনে করেন এই বিধান রোজার সাথে সম্পর্কিত কিন্তু রোজার সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই যা শুধুমাত্র কোরবানির সাথে সম্পর্কিত। আমরা অনেকেই মনে করি এই বিধান সবার জন্য কিন্তু তা নয়। এই বিধান শুধুমাত্র তাদের জন্য যারা আল্লাহ তায়ালাকে খুশি করার জন্য কুরবানী বা কুরবানী করতে চায়।

এই বিধান সেই ব্যক্তির জন্য প্রযোজ্য যে আল্লাহর নামে কোরবানি করে। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জন্য এই বিধান বাধ্যতামূলক নয়। আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর দিকনির্দেশনা থেকে এ কাজটি গুরুত্বপূর্ণ তাতে কোনো সন্দেহ নেই। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা কুরবানী করার অভ্যাস আছে তারা জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা না যাওয়া পর্যন্ত কুরবানী না করা পর্যন্ত চুল ও নখ কাটা থেকে বিরত থাকবে।

সর্বশেষ কথাঃ জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ - জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, আজকের পোস্টে জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখ ২০২৪ ও জিলহজ মাসের কত তারিখ ঈদ ২০২৪ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। এছাড়াও জিলহজ মাস সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য উপরে দেওয়া আছে। এই তথ্য আপনার জন্য দরকারী হবে আশা করি, উপরের কাজগুলো সঠিকভাবে করতে পারলে আশা করি সফল হবেন। জিলহজ মাসের গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পেশ করা হয়েছে।

জিলহজ হিজরি ক্যালেন্ডারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাস। মুসলিম জাতির পিতা ইব্রাহিম (আ.) আল্লাহর নির্দেশে এই জিলহজ মাসে তার প্রিয় পুত্রকে কোরবানি করতে নিয়ে যান। কিন্তু আল্লাহর শেষ পরিণতিতে ইব্রাহিম আলাইহিস সালামের পুত্র ইসমাইল আলাইহিস সালাম জীবিত ফিরে আসেন। আর তার পরিবর্তে আল্লাহ তায়ালা পশু কোরবানির বিধান জারি করেন।

ইব্রাহিম আলাই সালামের ঘটনা থেকে আমাদের শিক্ষা নেওয়া উচিত। আর ত্যাগের মূল শিক্ষা হল আত্মত্যাগ, সেই আত্মত্যাগের জন্য আমাদের অবশ্যই প্রশংসা করতে হবে। তাহলেই জিলহজ মাস আমাদের জন্য কল্যাণকর হবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন